চা বেচার গল্প শুনেছেন ! এবার দেখতেও পাবেন

নির্বাচন কড়া নাড়ছে দরজায়। এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই দেশজুড়ে সর্বত্র নির্বাচন শুরু হতে চলেছে। গেরুয়া, সবুজ, লাল সবে মিলে দলবদলের হাওয়ায় গরম হয়ে উঠেছে। যা আরও তাতাচ্ছে আসন্ন নির্বাচনকে। এরই মাঝে দ্বিতীয়বারের জন্য আত্মপ্রকাশ পেতে চলেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিক। কিছুদিন আগেই সামনে এসেছিল বিবেক ওবেরয় অভিনীত, ওমং কুমার পরিচালিত ‘পি.এম নরেন্দ্র মোদী’ সিনেমার ট্রেলার। এরই এক সপ্তাহের মধ্যে আরো এক চমকে দেওয়া বিষয় সামনে এল ইরোস নাও এর সৌজন্যে। মোদীজির জীবন নির্ভর করে তারাও আনতে চলেছে একটি প্রজেক্ট। তবে এবারেরটি ওয়েব সিরিজ। মোট ১০টি এপিসোডে দেখানো হবে সিরিজটি। ‘ও মাই গড’, ‘১০২ নট আউট’ খ্যাত পরিচালক উমেশ শুক্লা রয়েছে এর পরিচালনার দায়িত্বে। ওয়েব সিরিজের নাম ‘মোদী – জার্নি অফ আ কমন ম্যান‘ ৩ মিনিট ২৬ সেকেন্ডের ট্রেলারটি অনেকটা ওয়াইড রেঞ্জ কভার করেছে। তাতে যেমন রয়েছে ১৯৭৫ এর জরুরী অবস্থা, তেমনই রয়েছে ২০০২ এর গোধরা কান্ড। কিশোর মাকওয়ানা’র লেখা – ‘কমন ম্যানস্ পি.এম নরেন্দ্র মোদী’ নির্ভর করে তৈরি হয়েছে ওয়েব সিরিজটি। সিরিজে নরেন্দ্র মোদীর জীবনের তিনটি অধ্যায়কে তুলে ধরার চেষ্টা রয়েছে। ট্রেলারে দেখা যাচ্ছে সিরিয়ালের পরিচিত মুখ ফয়জাল খান রয়েছে মোদীর শৈশবের ভূমিকায়। যুবক বয়সের চরিত্রে রয়েছে আশীষ শর্মা। আবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখা যাচ্ছে বি টাউনের আরেক পরিচিত মুখ মহেশ ঠাকুরকে। এখন দেখার তিনজন অভিনেতা মিলে চরিত্রটির বিভিন্ন স্তর কিভাবে ফুটিয়ে তোলেন।

মোদী - জার্নি অফ আ কমন ম্যান

ট্রেলারের প্রথম দৃশ্যে দেখা যাচ্ছে চা বিক্রেতা হিসেবে ভাদনগর স্টেশনে ছুটছে কিশোর নরেন্দ্র। পরের দৃশ্যে নিজেকে খুঁজতে চাইছে সে – “পরমাত্মা নে মেরা নির্মাণ কিউ কিয়া হ্যায়? উয়ো মেরে হাতো সে কেয়া কারওয়ানা চাহতা হ্যায়?” এরপরই সে খুঁজতে বেরোয় নিজেকে। যুবক নরেন্দ্র সাক্ষী হয় ভারতের জরুরী অবস্থার, হাতেখড়ি হয় রাজনীতিতে। রাজনৈতিক জীবনে এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। প্রথমে গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী ও পরে দেশের প্রধানমন্ত্রীর পদে আসীন হন তিনি। এরই মাঝে গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন গোধরা কান্ড নিয়ে বিতর্কের ঝলকও দেখা যায় ট্রেলারটিতে। ব্যাক্তি নরেন্দ্র মোদীর জীবনের উত্থান-পতন, নৈতিক আদর্শ, জীবন দর্শন, সব কিছুই তুলে ধরার চেষ্টা দেখা যাচ্ছে ট্রেলারে। সংলাপের ব্যাপারে না বললেই নয়। ট্রেলারের ব্যাকগ্রাউন্ডে প্রথম সংলাপ – ” রাষ্ট্র সে বড়কার কোয়ী ঈশ্বর নেহী; আজাদি সে বড়কার কোয়ী ধরম নেহী; প্রজাতন্ত্র সে বড়কার কোয়ী পূজা নেহী” রাজনৈতিক মতাদর্শ ও নিজের দেশ সম্বন্ধে চরিত্রটির ভাবনা সামনে আনে। বাস্তবে যদিও এসকল দৃশ্যের সত্যতা স্বীকার করা প্রমানসাপেক্ষ। তবে চরিত্র হিসেবে আলোচিত এর ব্যক্তিত্বের ভাবভঙ্গি, চিন্তাধারা দর্শককে ভাবাবে নিশ্চয়ই। সেক্ষেত্রে আল্ট্রা পেট্রিওটিজম না বাস্তবঘেঁষা দেশপ্রেম তা নাহয় দর্শকই ঠিক করুক। ১০ই এপ্রিল থেকে ইরোস নাও-এ স্ট্রিমিং শুরু হবে এই ওয়েব সিরিজের।