Home ফিরে দেখা মনে আছে "বা" কে?
লিপ

সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের গাওয়া ভুল গানে লিপ দিয়েছিলেন সুচিত্রা সেন ! এও কি সম্ভব ?

"গানে মোর কোন ইন্দ্রধনু আজ স্বপ্ন ছড়াতে চায় হৃদয় ভরাতে চায়।। মিতা মোর কাকলী কুহু সুর শুধু যে ঝরাতে চায় আবেশ ছড়াতে চায় প্রাণে মোর ... " অগ্নিপরীক্ষা দিয়েই...
অঞ্জুকে

অন্তরাল ভেঙে অঞ্জু ঘোষ গেলেন অন্তরালপ্রিয়া সুচিত্রা সেনের বাড়ি !

অন্তরাল সরিয়ে অঞ্জু ঘোষ গেলেন বাংলাদেশের পাবনায় আরেক অন্তরালবর্তিনীর ভিটে দর্শনে। কলকাতা থেকে পাবনা গেলেন অঞ্জু। হ্যাঁ মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের পাবনার বাড়ি মিউজিয়াম দেখতে...

এখন কেমন ‘জুলি’ ?

1975 র সেই নিষিদ্ধ কামাগ্নি ছায়াছবি মনে পড়ে? নায়িকার মিনি স্কার্টে নগ্ন পা,সুড্যোল বুক, আলিঙ্গনে চুম্বনের মাখামাখি...নায়কের খোলা রোমশ বুক...শহর গ্রাম কাঁপিয়ে দেয় Bhul gaya...

মনে আছে “বা” কে?

সুধা শিবপুরি (14 July 1937 – 20 May 2015) । স্নেহময়ী মাতৃমূর্তি। দিদা ঠাকুমা প্রপিতামহী প্রমাতামহী সবার কাছেই যিনি ছিলেন আপন। বাড়ির বট গাছ। সেই ‘কিউকি সাঁস ভি বহু থি’ র বা। আসল নাম সুধা শিবপুরী। কিউকি দিয়ে উনি সবার কাছে পরিচিত দশ পনেরো বছর পেরিয়েও। কিন্তু শুরুটা করেছিলেন অনেক আগে।রাজস্থানের মেয়ে। স্কুলে পড়াকালীন পিতৃবিয়োগ হওয়ায় নাটক থিয়েটারে যোগ দেন সংসার চালাতে। 1968 এ বিবাহ। দিল্লী নাট্যজগতে নাটক চালিয়ে যান।স্বামীও বিখ্যাত নাট্যাভিনেতা ওম শিবপুরি। ঠিক পথে চালিত হওয়ায় সুধার জীবনের দিশা খুঁজে পান। নিজেদের নাট্যদল ‘দিশান্তর’ শুরু করেন।ছবিতে অভিনয় জীবনের শুরু সত্তর দশকে। চলে আসেন বোম্বে অর্থাৎ মুম্বাই।চরিত্রাভিনেত্রী হয়েই অনেক বিখ্যাত ছবি করেছেন।

স্বামী (1977) , আজীব দাস্তান (1978), ইনসাফ কা তারাজু (1980), হামারি বহু অলকা (1982) , আদাত সে মজবুর (1982) , বিধাতা (1982) , হাম দোনো (1985) , মায়া মেমসাব (1993) শাবানা আজমি থেকে শাহরুখ খান সবার সঙ্গেই অভিনয় করেছেন সুধাজী। সিনেমা থেকে বিরতি নেন সুধা দেবী। চলে আসেন সিরিয়ালে। প্রিয়া তেন্ডুলকার অভিনীত বিখ্যাত ধারাবাহিক ‘রজনী’ তে শাশুড়ির ভূমিকায় অভিনয় করেন।1990 তে স্বামীবিয়োগ। আঁকড়ে ধরেন আরো অভিনয়কেই। কিন্তু ওনার আইকনিক হিট মেগা সিরিয়াল হল 2001 এ ‘কিউকি সাঁস ভি বহু থি’। যা ওনাকে রাতারাতি সারা ভারতের মা ঠাকুমা বানিয়ে দেয়। তুলসী কিংবা সবিতা বহু সবাইকে সংস্কার দিয়ে গেছেন তিনি সিরিয়াল জুড়ে। পাশে দাঁড়িয়েছেন দুঃসময়ে। পূজাপাঠেও বা। এমনকি সিরিয়ালের টি আর পি ধরে রাখতে শততম বছরের বেশী বয়সী বা কে দেখানো হয়।যেটাও আজও আইকনিক ঘটনা। পেয়েছেন সঙ্গীত নাটক একাডেমি পুরস্কার থেকে স্টার পরিবার পুরস্কার। শেষ ছবি করেন ‘পিঞ্জর’।বা কিছু বছর প্রয়াত। এক কন্যা ও এক পুত্র। কিন্তু ঐ হাসি মাখা স্নেহময়ী মুখ যা দেখে রোজ ঘুমোতে যেত ভারতবাসী সেই মুখ সেই হাসি অমলিন রয়ে যাবে।

লেখা শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

এনা

MUST READ

১০০ দিনে কথনীয় ‘কন্ঠ’

একশো দিন একশোরও বেশী কন্ঠে উচ্চারিত আজ শিবপ্রসাদ-নন্দিতা জুটির 'কন্ঠ' ছবিটি। উইনডোজ প্রযোজিত 'কন্ঠ' ছবিটি একশো দিন পার করল।'কন্ঠ' ছবির অনুপ্রেরণা একজন ক্যান্সার রোগ...

“ঋতুর মা থেকে শিবুর মায়ের চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে আমি ধন্য।” – অনসূয়া মজুমদার

'মহাপৃথিবী, 'তাহাদের কথা','সম্প্রদান','দেবাঞ্জলী','মুখার্জীদার বউ','গোত্র' ... এক বিশাল সফরের নায়িকা অভিনেত্রী অনসূয়া মজুমদার -এর মুখোমুখি। গুলগাল.কম কে অনসূয়া মজুমদার জানালেন তাঁর রিল টু রিয়েল লাইফের...

রজনীগন্ধা ঝরে গেলেন !

চলে গেলেন বিদ্যা সিনহা। যিনি আলোচনা প্রচারের বাইরে ছিলেন। বলিউড মানে শুধু বিদ্যা বালান নন। তাঁর আগেও সত্তর দশকে দমকা মুক্ত হাওয়ার মতো মধ্যবিত্তর...

পুজারিনীর এই মিমিক্রি না দেখলে কিন্তু মিস করবেন !

পোস্টমাস্টার থেকে বড় পর্দায় উঠে আসা পূজারিণী কিন্তু এখন অনেক পরিণত , হাতে রয়েছে অনেক গুলো ছবি সাথে কিছু ওয়েব এর কাজ । সদ্য...