বসুন্ধরা-রাজার রান্নাঘর ‘আহা রে’ ছবির প্রানভ্রমরা !

আহার আর বাঙালী , এত একে অন্যের পরিপূরক। বাঙালী খাবারেও নানা ধরন জায়গা বিশেষে। যেমন কলকাতা, চব্বিশ পরগনার লোকেদের খাবার ধরন এক, আবার বীরভূম বাঁকুড়া বর্ধমানের আলাদা কিংবা একদম প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশের খাবার ধরন ভিন্ন। সবাই বাঙালী কিন্তু খাবার ধরনে অঞ্চলভেদ তফাৎ। কিন্তু এই রান্নার পদ গুলো যদি মিলিয়ে দেওয়া যায়? সেটাই করেছেন পরিচালক রঞ্জন ঘোষ তাঁর নতুন ছবি খাবার নিয়ে ‘ আহা রে‘ তে।

আহার থেকে ‘আহা রে’। দুই বাংলার খাবার রান্নার পদকে মিলিয়েছেন তাঁর ছবিতে। গঙ্গা আর পদ্মা দুই নদীমাতৃক দেশের আহার থেকে ভাষা, সম্পর্ক , ভালোবাসা মিলে গেছে এই নতুন ধারার ছবিতে। রান্নার সূত্রেই এপার বাংলার হিন্দু রাঁধুনী বলা ভাল রন্ধনশিল্পী কুক ও ওপার বাংলার মুসলিম শেফ পরস্পরকে আবিষ্কার করছে , তাঁদের সম্পর্ক গড়ে উঠছে। পশ্চিমবাংলার ঘরোয়া রান্না করা নারী হয়ে উঠছে পূর্ববাংলার শেফের প্রশিক্ষক। সেখান থেকে তাদের সম্পর্ক কোন কোন বাঁক নে শুধু হিন্দু মুসলিম ধর্ম , প্রেমে অন্তরায় নয় আরো অনেক কিছু প্রেক্ষাপট প্রেমিক প্রেমিকার ভালোবাসায় অন্তরায় হয়ে দাড়ায়। খাবারের মধ্যে দিয়ে তাই বলবে ‘আহা রে’। ছবির দুই মুখ্য চরিত্র হিন্দু কুক বসুন্ধরার ভূমিকায় ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। যে একদম বাঙালী ঘরোয়া খাবারে বাজিমাৎ করে। ঝিঙে পোস্ত থেকে সরস্বতী পুজোর ভোগের খিচুরী। আরেকটি চরিত্রে মুসলিম শেফ ফারহাজ চৌধুরী ( ডাক নাম রাজা) র ভূমিকায় বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়ক আরিফিন শুভ।  শুভ র প্রথম কলকাতার ছবি এটি। তাই বাংলাদেশের দর্শকরা বিশাল উচ্ছসিত রঞ্জন ঘোষের ‘আহা রে’ নিয়ে।

রাজা-বসুন্ধরা একে অপরকে দুই দেশের রান্না শেখানোর মাধ্যমে পরস্পরের অন্তরঙ্গতা গড়ে ওঠে। যা বসুন্ধরা-রাজার রান্নাঘর ‘আহা রে’ র প্রানভ্রমরা। শুভ-ঋতু এরআগে বাংলাদেশে আলমগীর এর পরিচালনায় করেছেন ‘একটি সিনেমার গল্প’। এবার কলকাতার ছবিতে শুভ। আরো বড় খবর ‘আহা রে’ তে রয়েছেন খোদ লিভিং লেজেন্ড আলমগীর।’আহা রে’ ছবিতে অভিনয়ের সঙ্গে ছবিটি প্রযোজনাও করছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত তাঁর প্রোডাকশান হাউস ‘ভাবনা আজ ও কাল‘।ছবিতে এছাড়াও রয়েছেন পরান বন্দ্যোপাধ্যায়, দীপঙ্কর দে, শকুন্তলা বড়ুয়া, অমৃতা চট্টোপাধ্যায় , অনুভব পাল, শুভ্রশঙ্খ দাস প্রমুখ।

আহা রে… সরস্বতী পুজোর অঞ্জলি চলছে। রান্নাঘরে ছড়িয়ে আছে ভোগের সবজি-আনাজ। তার মধ্যে বসেই রান্না করছে বসুন্ধরা ঋতুপর্ণা। অন্যদিকে নামাজ শেষ। এরপর অ্যাপ্রোন পরে রান্না করছেন আরফিন শুভ। এক সাধারন হয়েও অসাধারন মেয়ের একদম ঘরোয়া রান্নার রেসিপি হয়ে উঠছে শেফের হাত ধরে দেশে বিদেশে সমাদৃত।বাংলাদেশের নামী শেফ যে ভাবত কল্পনা জরুরী ভালো রান্না রাঁধতে। কিন্তু কলকাতায় এসে সে বাঙালী ঘরোয়া রান্নার প্রেমে পড়ে। কিন্তু ধর্ম সহ মেয়ে ছেলের চেয়ে বয়সে বড় ইত্যাদি নানা যা সমাজে প্রচলিত নয় সেসব পেরিয়ে কি জিততে পারে তারা?দুই ধর্ম নিয়ে প্রেমের ছবি মানেই ভায়োলেন্স দেখানো তা নয় খাবারের মাধ্যমে একদম আর্বান ছবি বানিয়ে ফেলেছেন রঞ্জন ঘোষ।কাহিনী, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা রঞ্জন ঘোষ।রঞ্জন ঘোষ যার ছায়াছবির জগতে পথ চলা শুরু স্বয়ং মৃণালিনী অপর্ণা সেনের হাত ধরে।’ইতি মৃণালিনী’ ছবির চিত্রনাট্যকার অপর্ণা সেনের সঙ্গে রঞ্জন ঘোষও ছিলেন।

‘হৃদ মাঝারে’ থেকে ‘রং বেরঙের কড়ি’ র পর রঞ্জনের আহার নিয়ে এই নতুন ছবি ‘আহা রে’।রঞ্জনের ছবিতে যে নতুনত্ব থাকবে সে বলতে অপেক্ষা রাখেনা। আহা রে সম্পাদনা করেছেন রবিরঞ্জন মৈত্র। সঙ্গীত স্যাভি।গীতিকার আস্কর আলি পন্ডিত এবং শুভদীপ কান্টাল। ছবিতে স্থান পেয়েছে রবি ঠাকুর থেকে কাজী নজরুল এর সৃষ্টি। অভিনয় প্রস্তুতি সোহাগ সেন।ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘দহন’ র পর দ্বিতীয় এই বাংলা ছবি ‘আহা রে’ তে চিত্রগ্রহন করেছেন হরি নায়ার। এই ছবি নিয়ে এ বাংলা সহ বাংলাদেশের দর্শকদের মধ্যে রয়েছে উন্মাদনা। আগামী বাইশে ফেব্রুয়ারী ‘আহা রে’ ছবির শুভমুক্তি।

আসুন দেখি ছবির ট্রেলার।