বাংলা ছবির প্রতি বিশ্বাস ফিরিয়ে আনছে মুখার্জী দার বৌ !

মধ্যবিত্ত

বিগত আন্তর্জাতিক নারী দিবসে কোলকাতার হল গুলোতে রিলিজ করেছিল এক জীবনমূলক রূপকথার ছবি। না, রাজা রানীর জীয়ন-মরণের ছবি না, দুই নারীর এক অসম বন্ধুত্বকে ভিত করে গড়ে ওঠা ছবি, ‘মুখার্জী দার বৌ ‘…কোলকাতার দর্শক অনেক দিন পর অবাক হয়ে যেন নিজেদের মধ্যবিত্ত জীবনের ছায়া এই সিনেমার মধ্যে দেখতে পেল, মুগ্ধ হলো… মাঝখান দিয়ে পঁচিশটা দিন কেটে গেছে, আজো সেই মুগ্ধতার রেশ কাটে নি! কোলকাতার সঙ্গে সঙ্গে মুম্বই, ব্যাঙ্গালোর, পুণে, দিল্লি, হাইদ্রাবাদের মতো শহর গুলোতেও মানুষের সামনে এল ছবিটি, আর তারপর…বাকিটা ইতিহাস! কে বলে, মানুষ বাংলা ছবি আর হলে গিয়ে দেখে না? বলিউডের হাই বাজেট পিরিওড ড্রামা আর নিখুঁত সি. জি. আই ভরা বিদেশী ছবির বাইরেও যে বাঙালীর একটা সংস্কৃতি আছে, মানুষ যে হাজার পরিবর্তনের মাঝেও সেই ভালোবাসার জায়গাটা আঁকড়ে ধরতে চায়, সেটাই আবার করে প্রমাণ করে দিল নন্দিতা রায়, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় জুটি প্রযোজিত, পৃথা চক্রবর্তী পরিচালিত ছবি মুখার্জী দার বৌ!

প্রথম সপ্তাহে ছবি বিভিন্ন হলে যখন রিলিজ করল, তখন থেকেই মানূষের ভালোবাসা পেয়ে এসেছে ছবিটি। নবীনা সিনেমা ঘিরে তৈরী এক সমীক্ষাতে জানা গেছে প্রথম রবিবারে যেখানে চল্লিশের বেশী শো হাউসফুল হয়, দ্বিতীয় রবি বারে গিয়ে সেই সংখ্যাটাই দাঁড়ায় পঞ্চাশ ছাপিয়ে। এমনকী এখনো, চতুর্থ সপ্তাহের পরেও পঁচিশের বেশী শো হাউসফুল যাচ্ছে। বলা বাহুল্য বিগ বাজেট, বিগ কাস্ট ছবির সঙ্গে তুলনা করলে, এ পাওনা মুখার্জী দার বৌ এর মতো ভালোবাসাকে ভিত্তি করে দাঁড়িয়ে থাকা ছবির কাছে এক বিরাট বাণিজ্যিক সাফল্য। তবে শিল্পীর কাছে তো সেটাই সব নয়! মানুষের এই অদ্ভুত মুগ্ধতাই তার আসল প্রাপ্য! সারা দেশ যখন স্বীকৃতি দেয় এমন এক ছবিকে, তখন সেটা হয়ে দাঁড়ায় এক অসম যুদ্ধ জয়। উইনডোজ প্রডাকশন রিস্ক নিতে জানে, ডিরেক্টর পৃথা চক্রবর্তী, কাহিনীকার সম্রাজ্ঞী বন্দ্যোপাধ্যায়, কনীনিকা ব্যানার্জি, অনসুয়া মজুমদার, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের মতো শিল্পীরা সাহসে বুক বাঁধার ক্ষমতাটা রাখেন বলেই বোধহয়, মুখার্জী দার বৌ যখন এখনো মেট্রো সীটির হলে হলে রাজত্ব করে বেড়াচ্ছে, তারমধ্যেই অক্ষয় কুমার পারিজার মতো ডিরেক্টর ছবির রিমেক করবেন ভেবে ফেলেন! বাংলা ছবির জন্য এ যেন বেশ অনেকদিন পরে অনেক বড় পাওনা! বাংলা ছবির জন্য এক বড় গর্বের সকাল নিয়ে এল মুখার্জী দার বৌ! এর মধ্যে অহংবোধ নেই, নাক উঁচু ভাব নেই, কেবল এক চিরস্থায়ী লাবণ্য থেকে যায়। তারই প্রকাশ পাওয়া গেল ছবির সফল পঁচিশ দিন উদযাপনের ইভেন্টে! নন্দিতা রায়, পৃথা চক্রবর্তী, সম্রাজ্ঞী বন্দ্যোপাধ্যায়, ছবির গায়িকা ইমন চক্রবর্তী, কনীনিকা , বিশ্বনাথের মতো অভিনেতারা সকলেই উপস্থিত ছিলেন সেই অনুষ্ঠানে।

বাংলা ছবির জগতে আবারো যে ফিরে ফিরে আসছে মুগ্ধতা, গ্রহনযোগ্যতা, মুখার্জী দার বৌ-এর মতো ছবি তা প্রমাণ করে দেয় বারবার। জানান দেয়, কোনো শুভ বোধ-ই হারায় না চীরকাল, ফিরে ফিরে আসে। আলোর দিকে সেই পথচলা শুরু হয়ে গেছে।