Home চেনার মাঝে অচেনা ‘ম্যান উইথ নো নেম’ দশকের পর দশকজুড়ে প্রভাব বিস্তার করে চলেছেন হলিউডে...
বাঙালীয়ানা

কিছু ছবি শুধু বাংলা নয় ! বরং বাঙালির ছবি

নববর্ষ মানেই বাংলা ও বাঙালীয়ানা। পয়লা বৈশাখ মানেই বাংলা বছর শুরু। আমরা আজ দেখব সেরা পাঁচ বাংলা ছবি। যে ছবিগুলোয় খাঁটি বাঙালীয়ানা রয়েছে। যে...
একই অঙ্গে এত রূপ 1965

হারানো ছবির গল্প !

পরিচালক হরিসাধন দাশগুপ্তর বাংলা ছবিতে অবদান একদম অনালোচিত। চলচ্চিত্রকার হিসেবে তাঁর সবচেয়ে আলোচিত ছবি সুচিত্রা - উত্তম অভিনীত 'কমললতা'। খুবই গুণী মানুষ। কিন্তু মেঘে...

এখন কেমন ‘জুলি’ ?

1975 র সেই নিষিদ্ধ কামাগ্নি ছায়াছবি মনে পড়ে? নায়িকার মিনি স্কার্টে নগ্ন পা,সুড্যোল বুক, আলিঙ্গনে চুম্বনের মাখামাখি...নায়কের খোলা রোমশ বুক...শহর গ্রাম কাঁপিয়ে দেয় Bhul gaya...

‘ম্যান উইথ নো নেম’ দশকের পর দশকজুড়ে প্রভাব বিস্তার করে চলেছেন হলিউডে !

১৯৩১ সালের ৩০ মে যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোতে জন্ম নেন ক্লিন্ট ইস্টউড। জন্মের সময় তার ওজন কত ছিল জানেন? ১১ পাউন্ড ৬ আউন্স! সেজন্যই শক্তিদেবতার নামানুসারে হাসপাতালে তার ডাকনাম দেয়া হয়েছিল ‘স্যামসন’। ক্যালিফোর্নিয়ার পাইডমন্টের মধ্যবিত্ত দম্পতি ক্লিন্টন ইস্টউড এবং রুথ উড নিজেদের আদরের ছেলেকে ভর্তি করতে চেয়েছিলেন সেখানকার হাই স্কুলে। কিন্তু ছন্দবদ্ধ জীবনে মনে হয় ছোটবেলা থেকেই অরুচি ছিল তার, তাই একবার নিজের সাইকেল চালিয়ে তছনছ করে দেন সেই স্কুলের খেলার মাঠ। পরে ওকল্যান্ড হাই স্কুলে পড়লেও গ্র্যাজুয়েশন করেছিলেন কি না, তার ব্যাপারেও সন্দেহ আছে অনেকের। ছোটবেলায় নাকি শখের বশে ১৩টা সাপ পুষেছিলেন তিনি।

পরবর্তীতে অরিগন এবং টেক্সাসের বনগুলোতে অগ্নি নির্বাপণের কাজ করেন। সেসময় নাকি সিয়াটল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির চেষ্টাও করেছিলেন তিনি। কিন্তু কোরিয়ান যুদ্ধ শুরু হবার কারণে যুক্তরাষ্ট্র আর্মিতে যোগ দেন। অবশ্য সম্মুখসমরে যাওয়া হয়নি তার, সময় কেটেছে ফোর্ট অর্ডে সাঁতার প্রশিক্ষক এবং লাইফগার্ড হিসেবে।সেখান থেকে ফিরে আসার সময়ে, পঞ্চাশের দশকের শুরুর দিকে একবার প্লেন ক্র্যাশে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসেন ইস্টউড। গ্যাস শেষ হয়ে যাওয়ায় ক্যালিফোর্নিয়ার পয়েন্ট রেয়েসের কাছাকাছি সাগরে আছড়ে পড়ে বিমানটি। এ অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে পরে ইস্টউড বলেছিলেন, “সময়টা ছিল অক্টোবর-নভেম্বর, সাগরের জল ছিল খুবই ঠাণ্ডা। অনেক বছর পরে জানতে পেরেছিলাম যে, সেই সাগর ছিল হাঙরদের প্রজনন ভূমি। ভাগ্য ভালো যে, সেসময় একথা জানতাম না। জানলে ভয়ে সেখানেই মরে যেতাম!” ইস্টউড আর সেই বিমানচালক প্রায় তিন মাইল সাঁতরে তীরে উঠেছিলেন।

পঞ্চাশের দশকে কিছু সাধারণ মুভি আর টিভি সিরিজ বাদে বলার মতো তেমন কোনো সাফল্য ছিল না তার। সেসময় নিজের খরচ চালানোর জন্য হলিউডের আলিশান বাড়িগুলোয় সুইমিং পুল খননের কাজ করতেন তিনি।আরভিং গ্লাসবার্গ নামে ইউনিভার্সাল স্টুডিওর এক সিনেমাটোগ্রাফার ছিলেন তার বন্ধু। তার সাথে দেখা করতে গিয়ে বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষার পরে ক্যামেরার সামনে স্ক্রিন টেস্ট দেন ইস্টউড।তার পরিচালিত মুভিতে অভিনয় করে মোট এগারোজন অভিনেতা অস্কারে মনোনয়ন পেয়েছিলেন। তারা হলেন জেন হ্যাকম্যান, মেরিল স্ট্রিপ, শন পেন, টিম রবিন্স, মার্সিয়া গে হারডেন, হিলারি সোয়্যাংক, মরগান ফ্রিম্যান, অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, ম্যাট ডেমন, ব্র্যাডলি কুপার এবং তিনি নিজে। এদের মাঝে অস্কার জিতে নেন পাঁচজন- ‘আনফরগিভেন’ এর জন্য জেন হ্যাকম্যান, ‘মিস্টিক রিভার’ এর জন্য শন পেন এবং টিম রবিন্স, ‘মিলিয়ন ডলার বেবি’র জন্য মরগান ফ্রিম্যান এবং হিলারি সোয়্যাঙ্ক।

হাই স্কুল পাশ করা নিয়ে সন্দেহ থাকলে কী হবে, একটা সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি কিন্তু ঠিকই আছে তার। ২০০০ সালে ওয়েসলেইন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এটি পান ক্লিন্ট। ২০০১ সালে গরিলাজ নামের একটি ব্যান্ড তাকে নিয়ে একটি গান লিখে ফেলে। অবধারিতভাবেই গানটির নাম ছিল ‘ক্লিন্ট ইস্টউড’। ফ্রান্সের সাথে সরাসরি কোনো সম্পর্ক না থাকলেও ২০০৭ সালে সেখানকার সর্বোচ্চ সম্মাননা লিজিয়ন অফ অনার পান ক্লিন্ট ইস্টউড। তার কাজ সবসময়েই সেখানে বেশ ভালো সাড়া ফেলত, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লপ হওয়া মুভিগুলোও।জীবনের শুরুর দিকে নিজের কাজের তেমন কোনো থই পাচ্ছিলেন না তিনি। নিজের স্বকীয়তাকে বজায় রেখেই কিন্তু সেরা বহুমুখী প্রতিভাদের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। যে কাঠখোট্টা অভিনয়ের জন্য সমালোচিত হয়েছিলেন, তাকেই এখন অনেকে অনুকরণ করছে। বিনোদন দিয়ে যেমন দর্শকের মন জয় করেছেন, তেমনি শিল্পের সমঝদার হয়ে সমালোচকদের প্রশংসাও অর্জন করেছেন। এভাবেই আমাদের এই ‘ম্যান উইথ নো নেম’ দশকের পর দশকজুড়ে প্রভাব বিস্তার করে চলেছেন হলিউডে (www.clinteastwood.net)।

লেখা শোভন নস্কর

MUST READ

১০০ দিনে কথনীয় ‘কন্ঠ’

একশো দিন একশোরও বেশী কন্ঠে উচ্চারিত আজ শিবপ্রসাদ-নন্দিতা জুটির 'কন্ঠ' ছবিটি। উইনডোজ প্রযোজিত 'কন্ঠ' ছবিটি একশো দিন পার করল।'কন্ঠ' ছবির অনুপ্রেরণা একজন ক্যান্সার রোগ...

“ঋতুর মা থেকে শিবুর মায়ের চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে আমি ধন্য।” – অনসূয়া মজুমদার

'মহাপৃথিবী, 'তাহাদের কথা','সম্প্রদান','দেবাঞ্জলী','মুখার্জীদার বউ','গোত্র' ... এক বিশাল সফরের নায়িকা অভিনেত্রী অনসূয়া মজুমদার -এর মুখোমুখি। গুলগাল.কম কে অনসূয়া মজুমদার জানালেন তাঁর রিল টু রিয়েল লাইফের...

রজনীগন্ধা ঝরে গেলেন !

চলে গেলেন বিদ্যা সিনহা। যিনি আলোচনা প্রচারের বাইরে ছিলেন। বলিউড মানে শুধু বিদ্যা বালান নন। তাঁর আগেও সত্তর দশকে দমকা মুক্ত হাওয়ার মতো মধ্যবিত্তর...

পুজারিনীর এই মিমিক্রি না দেখলে কিন্তু মিস করবেন !

পোস্টমাস্টার থেকে বড় পর্দায় উঠে আসা পূজারিণী কিন্তু এখন অনেক পরিণত , হাতে রয়েছে অনেক গুলো ছবি সাথে কিছু ওয়েব এর কাজ । সদ্য...