এটি একটি ব্যতিক্রমী এবং সাহসী শর্ট ফিল্ম!

শর্টফিল্ম মানেই তাতে বাঙালির চাহিদা একটি পরিণত গল্প। এবং সেটা প্রস্টিটিউশন’ও হতে পারে। পরিচালক সুর্যেন্দু কর্মকার তাঁর প্রথম ছবিতে ফ্রেম বন্দী করলেন একজন প্রস্টিটিউট’র গল্প। ছবির নাম এবং প্রেক্ষাপট দুই’ই এক অর্থাৎ ‘প্রস্টিটিউট’।মিনিট ১২’র এই ছবিতে জানতে পারা গেছে একটি মেয়ের প্রস্টিটিউট হয়ে ওঠার গল্প। শুধু তাই নয়, এই গল্পের সাথে একজন ইঞ্জিনিয়ারের কাহিনী জুড়ে দিয়ে সভ্য সমাজের জন্য একটি কড়া জবাব’ও তুলে দিয়েছেন সুর্যেন্দু বাবু।

দেহ ব্যবসা বা তার সঙ্গে যুক্ত মানুষদের আমরা ঘৃনাভরে দেখি ঠিকই তবে তাদের আড়ালে থাকা অজানা গল্পটা কেউই জানতে চাইনা। এই শর্টফিল্মটি সমাজের একটি ব্যতিক্রমী রূপ দেখিয়েছে এবং একইসঙ্গে পাশে দাঁড়িয়েছে সমাজ থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া বহু মানুষের। হয়তো ছবিটি না দেখলে আপনিও অনেক কিছু মিস করে যাবেন। অন্তত এরকম পরিণত একটা গল্প তো বটেই। আপনিও দেখুন এই শর্ট ফিল্মটি এবং জানান আমাদের কেমন লাগলো আপনাদের…