বিশ্বযুদ্ধের আবহে সম্ভবত বাংলাতে প্রথমবার তৈরি হল এইরকম শর্টফিল্ম, দেখুন টিজার..

তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বাঁধলো বলে, কথাটা প্রায়ই শোনা যায় লোকমুখে। কিন্তু দুঃস্বপ্নেও কি কখনও কল্পনা করতে পেরেছেন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের কথা? কল্পনা করতে না পারাটাই স্বাভাবিক, কারণ আজকের দিনে দাঁড়িয়ে যদি আরেকটা বিশ্বযুদ্ধ হয় তাহলে তার রুপ ঠিক কেমন হতে পারে তা বিবেচনা করাটাই মুশকিল। কিন্তু এরমই এক গল্প নিয়ে আসতে চলেছে দেবাঞ্জন মাঝির তৈরী শর্ট ফিল্ম ‘বাটারফ্লাইস অফ ওয়ার’।

প্রজাপতি ও যুদ্ধ দুটো শব্দই যেন দুটো ভিন্ন জগতের, একদিকে ভালোবাসা, একদিকে হিংসা, সে ক্ষেত্রে ছবির নাম অবশ্যই আইরনিক্যল। যেখানে গল্প শুরুই হয় দুই যুদ্ধ পরবর্তী বিদ্ধস্ত সংগ্রামীর কথপোকথন দিয়ে। ঘটনাচক্রে তাদের মধ্যে কেউই লড়াই করছেন না নিজের দেশের হয়ে, অর্থাৎ দুজনেই কোনও এক দেশের ভাড়াটে যোদ্ধা, লড়ছেন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধে। প্রাণের দায়ে একজন আশ্রয় নিয়েছেন কলকাতারই এক বাড়িতে এবং সেখানেই আলাপ হয় তার একটি মেয়ের সাথে। এরপর পরিস্থিতির সাপেক্ষে এগোতে শুরু করে গল্প। এই ছবির গল্প ছাড়াও আরও এক নতুনত্ব হল ভিএফএক্সের প্রয়োগ। আজকের দিনে যদি আরেকটা বিশ্বযুদ্ধ বাঁধে তাহলে কলকাতার কি রুপ হতে পারে বা ধরুণ ২০২৭ এ তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী ভগ্ন কলকাতারই এক দৃশ্য দেখা যাবে এই ছবিতে।

ছবি নিয়ে যথেষ্ট কনফিডেন্ট পরিচালক স্বয়ং, ফোনের ওপারে জানালেন, “আগে এরকম কোনও গল্প নিয়ে বাংলাতে শর্ট ফিল্ম হয়নি বলেই আমার মনে হয় । তাই দর্শকের এই ছবি ভালো লাগতে পারে”।

ইতিমধ্যেই InnoKrea Motion Pictures প্রযোজিত ছবিটি প্রশংসা পেয়েছে সৃজিত মুখার্জী থেকে শুরু করে কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়ের। দেবাঞ্জন সৃজিতকে অ্যাসিস্ট করেছেন বেশ কিছু ছবিতে। সেক্ষেত্রে সৃজিতের প্রভাব তার মধ্যে কতটুকু জানতে চাইলে তিনি জানান, “শর্ট ফিল্মের ক্ষেত্রে যেহেতু ছবির বাজেট একটা লক্ষণীয় বিষয়, সেই বাজেটের কথা মাথায় রেখে কি করে এগোতে হবে সৃজিতদার থেকে তা শিখেছি। ওনার সাথে কাজ করতে পারাটাই একটা অভিজ্ঞতা”।

ছবির অন্যতম খেয়া যাকে সম্প্রতি দেখা গেছিল প্রজাপতি বিস্কুটে তিনি প্রশংসায় পঞ্চমুখ পরিচালকের, “দেবাঞ্জন জিনিয়াস, ও জানে কিভাবে কাজ বের করে নিতে হয়, প্রথমে স্ক্রিপ্টটা শুনে বুঝি নি কিন্তু শেষমেষ যে রেজাল্টটা এল অসাধারণ!”

গল্পের ব্যাপারে বলতে গিয়ে আরেক বিখ্যাত অভিনেতা অরিত্র দত্ত বলেন, “আজকাল তো যে কেউ শর্টফিল্ম বানাচ্ছে কিন্তু শুধুমাত্র বানানোর জন্য এটা করা নয়, ম্যাচিওর একটা গল্প সেভাবেই লেখা এবং গল্পটা ভালো লাগতেই আমি কাজটা করতে রাজি হয়ে যাই”।

খেয়া, অরিত্র ছাড়াও রয়েছেন আরিয়ান রায়, সারন্য ব্যানার্জিসহ অনেকে। ছবিটি পুরষ্কৃত হয়েছে তিনটি ফেস্টিভ্যালে। ডিসেম্বরের প্রথম  দিকেই রিলিজ করবে ‘বাটারফ্লাইস অফ ওয়ার’। তার আগে আপনাদের জন্য রইল ছবির টিজার।