ছ মাসেই শেষ ‘আমি সিরাজের বেগম’ !

সিরাজের

খুব ঢাকঢোল পিটিয়ে শুরু হয়েছিল কিন্তু আচমকাই যবনিকা পাত হল সিরিয়ালের। সিরিয়ালে কারো অভিনয় কিন্তু খারাপ ছিলনা বরং খুব সুন্দর। দর্শক টেনেও ছিল প্রচুর কিন্তু এত আগেই শেষ। কি ঘটল হঠাৎ? মতামত কলাকুশলীদের একরকম, দর্শকদের আরেকরকম। মেগার মুখ্য চরিত্র চিত্রণ এতটাই ভাল ছিল যে প্রোমো থেকেই দর্শক পছন্দ করতে শুরু করেন সিরাজের ভূমিকায় সুপ্রিয়া দেবী দৌহিত্র শন বন্দ্যোপাধ্যায় ও লুৎফার ভূমিকায় পল্লবী দে-কে। তুলিকা বসু,চান্দ্রেয়ী ঘোষ,বাদশা মৈত্র দের।

কিন্তু এখনও সাড়ে নটার স্লটে আসেনি নতুন ধারাবাহিক ‘কলের বউ’। তাই আধঘণ্টা সময়টি পূরণ করতে ‘ফাগুন বউ’ ও ‘বিজয়িনী’– দুটি ধারাবাহিকই ৪৫ মিনিটের এপিসোড সম্প্রচার হচ্ছে। মেগা প্রযোজনার দায়িত্ব ছিল দাগ সি মিডিয়ার হাতে। ওই সংস্থার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে পেমেন্ট বকেয়া রাখার অভিযোগ ওঠায়, শেষ পর্যন্ত দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয় শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস-এর হাতে। কিন্তু তাতেও শেষরক্ষা হলনা। বন্ধ হয়ে গেল মেগা আমি সিরাজের বেগম। চান্দ্রেয়ী ঘোষ বললেন, “যে কোনও চরিত্রই যখন শেষ হয়ে যায় তখন খুবই কষ্ট হয়। এই চরিত্রটি (ঘসেটি বেগম) তো পরিচিত, ইতিহাসের পাতায় আছে… তো সেটা নিয়ে খুবই মন খারাপ। মন খারাপ চলছে, এখন কিছুদিন থাকবে। আসলে আজকাল কিছুই আগে থেকে বলা যায় না… সব লাস্ট মোমেন্টে জানা যায়, আর ডিসিশনও হয় লাস্ট মোমেন্টে। এরকমই একটা সময়ের মধ্য দিয়ে আমরা যাচ্ছি আর কী। আমি তো ২০ বছর ইন্ডাস্ট্রিতে আছি… যখন শুরু করেছিলাম তখন এক ভাবে কাজ হত, এখন আর এক ভাবে কাজ হয়। তো মেনে নিয়েই চলতে হবে… কিছু করার নেই। মানুষ হিসেবে বিগত ২০ বছরে আমিও হয়তো চেঞ্জ হয়েছি, তো ইণ্ডাস্ট্রিও বদলেছে ২০ বছরে। আমি আমার কাজ ভালোবাসি, কিছু যদি চেঞ্জও হয় তাঁর সঙ্গেই চলতে হবে… আমি নিজের কাজ এতটাই ভালবাসি।” সিরাজ-এর চরিত্রাভিনেতা শন বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রথম কাজ। প্রথম কাজ এ ভাবে শেষ হয়ে যাওয়াতে তাঁর প্রতিক্রিয়া কী? তিনি এতটাই বিমূঢ় প্রথমে কথা খুঁজে পেতে অসুবিধা হল, “আ…ম…আ… কী যে বলি! বিষয়টা খুবই… আ… হঠাৎ করে হয়ে গেল তো খুব খারাপ লাগছে।

তবে এখানে অভিনয় করে আমার অনেক এক্সপিরিয়েন্স হয়েছে, অনেককিছু শিখতে পেরেছি… ” পারিশ্রমিক নিয়ে চান্দ্রেয়ী জানালেন, “আমার পেমেন্ট নিয়ে সমস্যা হয়নি। সরাসরি চ্যানেলের সঙ্গে আমার চুক্তি। কিন্তু টিমের অনেকের পেমেন্ট আটকে আছে।” চ্যানেলের মতে টি আর পি কমেনি প্রোডাকশান হাউস পেমেন্ট বাকি রাখায় সিরিয়াল এগোনো গেলনা। কিন্তু দর্শকদের মত অন্য, তাঁদের মতে সিরিয়াল যে সুন্দর ভাবে শুরু হয়েছিল ক-মাস পর সিরিয়ালে বাকি সিরিয়ালের মতো কূটকাঁচালী, সতীনবাজী ঢোকানো হয়। ইতিহাস বিকৃত চিত্রনাট্য প্রদর্শিত হচ্ছিল আমি সিরাজের বেগম । একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি দেখানো হয়। যা ইতিহাসে নেই সেসব ঘটনা দেখানো হয় পরের দিকে। বহু দর্শক বীতশ্রদ্ধ হয়েই সিরিয়াল দেখা ছেড়ে দেয়। তাঁদের কোনো আক্ষেপ নেই সিরিয়াল বন্ধ নিয়ে। ইতিহাসের শিক্ষক অধ্যাপকরা জানিয়েছেন ছাত্ররা মিসগাইডেড হচ্ছিল এই সিরিয়াল দেখে। বকেয়া টাকা না পাওয়া কি কম টিআরপি কারন যেটাই হোক, এত ভালো চরিত্র চিত্রণ হয়েও সম্পূর্নতা পেলনা ঐতিহাসিক চরিত্র গুলো। যা হোক করেই ইতি টানা হল।