সময়ের থেকে এগিয়ে থাকা অগ্নীশ্বর ! আসুন এক বার ফিরে দেখি ..

জোনাথন-ক্রিস্টোফার ভায়েরাই শুধু হলিউড কাঁপায়নি, টলিউডেও একসময় দুই ভাই ছিল। বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায় এবং অরবিন্দ মুখোপাধ্যায়। একজন লিখতেন আর একজন তাঁর গল্প নিয়ে সিনেমা বানাতেন। সেই অরবিন্দ মুখোপাধ্যায়ের অন্যতম কালজয়ী সিনেমা হল অগ্নীশ্বর । তার ভাই গল্পটা লিখেছিলেন কোন এক অচেনা ডাক্তারের জীবনকে কেন্দ্র করে।

অগ্নীশ্বর একজন ডাক্তার। যিনি নাস্তিক এবং কুসংস্কার মুক্ত। জাতপাতে বিশ্বাসী নন। তাঁর মাথা ছিল দুর্দান্ত। স্কলারশিপের টাকা আর টিউশন পড়ানোর টাকায় ডাক্তারি পাশ করেন। বিধবা বোন যখন না খেয়ে একাদশী পালন করেন তখন রেগে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যান। আপাত দৃষ্টিতে কঠোর হলেও তিনি দয়ালু। এমনই এক ডাক্তারের সরকারী হসপিটালে চাকরী করতে এসে নানা অভিজ্ঞতা হয়। ক্রমাগত বাধার সম্মুখীন হন। কিন্তু কাউকেই তিনি তোয়াক্কা করতেন না। এমনকি ইংরেজরাও তাঁর ভয়ে ভয়ে চলত। চাকরির খাতিরে তিনি নানা হাসপাতালে ঘোরেন এবং ব্যাপক অভিজ্ঞতা লাভ করেন। যে অভিজ্ঞতা দর্শকদের ক্রমাগত শক দিতে থাকে। ইতিমধ্যে ডাক্তারের জীবনে দুবার অনুচ্চারিত প্রেম আসে। কিন্তু সেও হয় ক্ষণস্থায়ী। জীবন তাঁকে ক্রমাগত আঘাত দিতে থাকে কিন্তু তিনি নিজের রাস্তা থেকে সরেননি। এর মধ্যে আসে স্বাধীনতা সংগ্রাম এর কিছু অংশ। শেষ জীবনে ছেলের সাথে মানিয়ে নিতে না পেরে অনেক দূরে গ্রামে চলে গিয়ে ডাক্তারি করেন। তখন তিনি নতুন ভারতবর্ষকে আবিষ্কার করেন। অগ্নীশ্বরের উপলব্ধি হয় তাঁর দেশই সকল দেশের সেরা।

অগ্নীশ্বরের চরিত্রটি যেভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন উত্তমকুমার তাতে জীবনের অন্যতম সেরা অভিনয় করেছেন বলা যায়। অসাধারণ সুর দিয়েছেন হেমন্ত মুখোপাধ্যায়। ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোরগুলি অনেক আধুনিক শুনলেই বুঝবেন।

আজ কেন আমি এই সিনেমাটার কথা বলছি। কারণ কিছু সিনেমা আছে পুরনো হয় না। যুগের থেকে অনেক এগিয়ে। আমি বহুবার সিনেমাটা দেখেছি আর চোখের জল ফেলেছি। একজন স্বাধীনচেতা কুসংস্কারমুক্ত মানুষ নাহলে সিনেমাটার প্রকৃত উপলব্ধি করা সম্ভব নয়।

শুনে নিন সিনেমার কিছু কালজয়ী গান:

 

Writen By – শোভন নস্কর