Home ফিরে দেখা "আমার ছবি, আমি তোকে বাদ দিতেই পারি!" ঋতুপর্ণ বলেছিলেন অপরাজিতাকে !
শ্বশুরবাড়ি

ভানুজায়া নীলিমা বন্দ্যোপাধ্যায় @৯০

শুধুমাত্র ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী-ই নন, গায়িকা হিসাবেও নিজের আলাদা পরিচিতি তৈরি করে তিনি বিখ্যাত হয়েছিলেন৷ পল্লীগীতি, কীর্তন, ছড়ার গান ইত্যাদিতে যথেষ্ট নাম করেছিলেন তিনি৷...
স্বরুপ

সেভেন্টিজের রোম্যান্টিক হিরো স্বরুপ দত্ত প্রয়াত

প্রয়াত স্বরুপ দত্ত। আজ ভোরে দীর্ঘ রোগ ভোগের পর। প্রয়াত অভিনেতা শেষ জীবনে প্রচারের বাইরেই ছিলেন।কিন্তু শুরুটা যার ছিল অনবদ্য। ছায়া দেবী,উত্তম কুমার,তনুজা,অপর্ণা সেন,জয়া...
জহর

নটবর ১০০তেও নটআউট !

বাবা সতু রায় ছিলেন নির্বাক যুগের বিখ্যাত অভিনেতা। কিন্তু তাতে ছেলের বিশেষ কিছু সুবিধে হয়নি। তাঁর জন্ম বরিশালে। বাবা পরে চলে আসেন কলকাতায়। শেষে...

“আমার ছবি, আমি তোকে বাদ দিতেই পারি!” ঋতুপর্ণ বলেছিলেন অপরাজিতাকে !

“- ও তোমার কদর করতে পারবে ?”

“- বাবু, কদর তো কত লোক করে বল… ভালোবাসার সাহস কতজনের আছে বল তো ? “

এই বিখ্যাত দৃশ্যে ঋতু কি আদৌ কদর করেছিলেন অপরাজিতা আঢ্যর অভিনয়ের?

করেননি। একটা ছোট রোল করেই অপরাজিতা আঢ্য “চিত্রাঙ্গদা” সিনেমায় নজরে পড়েন সবার। কিন্তু তিনি আরো একটি দৃশ্যে অভিনয় করেন ঋতুপর্ন র এই “চিত্রাঙ্গদা”ছবিতে। সেই সিনটা আরও ভালো ছিল। ডাবিং করার সময় অপরাজিতা ঋতুকে জিজ্ঞেস করেন “ঐ সিনটার ডাব করলেনা?” ঋতুপর্ণ বলেন “ঐ সিনটার সাউন্ড ঠিক আছে ডাব করার দরকার নেই। “পরে যখন সিনেমা ফাইনাল হয়ে যায় তখন অপরাজিতা আঢ্য দেখেন ঐ সিনটা সিনেমাতে আদৌ নেই। দুটো সিন করেন অপরাজিতা। কিন্তু ভালোটা উধাও। রয়ে যায় এটা।
তখন অপরাজিতা ঋতুকে জিজ্ঞেস করেন “ঐ সিনটা কোথায় গেল ঋতুদা?”

ঋতু বলেন

“ঐ সিনটা রাখিনি সিনেমা থেকে বাদ দিয়ে দিয়েছি।” কারন জানতে চাইলে ঋতুপর্ণ বলেন “

ঐ সিনে তুই আমার থেকেও ভালো অভিনয় করেছিলি। আমি যেহেতু সিনেমার লিড। তুই আমাকে অভিনয়ে ছাপিয়ে যাচ্ছিলি তাই তোর ঐ সিনটা বাদ দিয়ে সিনেমাটা করেছি। আমার ছবি আমি তোকে বাদ দিতেই পারি” অপরাজিতা তখন ভীষন দুঃখ পেয়ে বলেন “তুমি আমায় অভিনয় শিখিয়েছো ডাবিং শিখিয়েছো কি করে সাজতে হয় শিখিয়েছো কিন্তু আজ যেটা করলে তাতে আমি আর তোমার সঙ্গে জীবনে কাজ করবনা অভিনয় করবনা” ঋতুও বলেন”তুই এইরকম সুযোগও পাবিনা” অপরাজিতা বেরিয়ে চলে আসেন।

সিনেমায় যত বন্ধুত্ব ভাব দেখতে লাগে চরিত্রদের অথচ বাস্তবে সম্পর্ক ভেঙে খানখান। “প্রাক্তন” র মলিকে ঋতুদা দেখে যেতে পারেননি বিএফজেএ সহ আরও সম্মান পাচ্ছেন ঋতুর সবচেয়ে প্রিয় নায়ক বুম্বার বুকে মাথা রাখছে অপা …. সমান্তরাল, কিশোরকুমার জুনিয়র, হামি ,বেলা শেষে, জেনারেশন আমি, মাটি সবেতে আজ শুধু অপরাজিতা। ঋতুপর্ণ দেখে যেতে পারেননি দেখলে কি করতেন? সাধে কী আর বলে- স্ত্রীয়াশ্চরিত্রম দেবা না জানন্তি কুতো মনুষ্যা।

 

লেখক শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

MUST READ

মহালয়ার সেরা পাঁচ ‘ মহিষাসুরমর্দিনী ‘

আকাশবাণী কলকাতার 'মহিষাসুরমর্দিনী 'র পর টেলিভিশনে 'মহিষাসুরমর্দিনী' সবার কাছেই ভালোবাসার। কিন্তু এখন অনেক চ্যানেল হওয়া সত্ত্বেও টিভির মহালয়া দর্শকের বিরক্তি উদ্রেক করে। সেই মেগার...

পুজোর সেরা পুরুষ কে ? এবার পুজোয় অভিনব উৎসব !

পুরুষ। পুরুষ যেন পড়ে পাওয়া চোদ্দ আনা। নারী দিবস নিয়ে হৈচৈ। নারী দিবসের দরকার তো আছেই কিন্তু পুরুষ দিবস কবে কোনদিন আমরা কজন জানি?...

এবার মহালয়াতেই অকাল বোধন !

দেবী দুর্গার ত্রিনয়ন, যার জ্যোতিতে আলোকিত বিশ্ব। সৃষ্ট প্রাণ। আমরা দেবী দুর্গাকে চোখে দেখিনি দেখিনা। কিন্তু দুর্গা মানে এক শক্তি। নারী শক্তি। ধরিত্রীতে সকল...

নটবর ১০০তেও নটআউট !

বাবা সতু রায় ছিলেন নির্বাক যুগের বিখ্যাত অভিনেতা। কিন্তু তাতে ছেলের বিশেষ কিছু সুবিধে হয়নি। তাঁর জন্ম বরিশালে। বাবা পরে চলে আসেন কলকাতায়। শেষে...