এখন কেমন ‘জুলি’ ?

1975 র সেই নিষিদ্ধ কামাগ্নি ছায়াছবি মনে পড়ে? নায়িকার মিনি স্কার্টে নগ্ন পা,সুড্যোল বুক, আলিঙ্গনে চুম্বনের মাখামাখি…নায়কের খোলা রোমশ বুক…শহর গ্রাম কাঁপিয়ে দেয়

Bhul gaya sabakuchh, yaad nahin ab kuchh Ek yahi baat na bhuli, Julie, I love you…

জুলিতখন সত্তর দশকের সমাজে কোয়েড স্কুল ছিলনা, ফোনের চল এত ছিলনা, ছেলে মেয়ের মেশামেশি এত সহজ ছিলনা, মিনি স্কার্ট দূর চুড়িদার কামিজ পরা নিষিদ্ধ ছিল, পারিবারিক ছবি বেশী চলত…সেখানে ঝড় তোলে “জুলি“। অন্যদিকে সব কিশোর কিশোরীর ঠোঁটে ঠোঁটে বইতে থাকে “My heart is beating”…প্রীতি সাগর এর গান। এক ঝটকায় সমাজে দোলা দেয় জুলি ওরফে লক্ষ্মী, নায়ক বিক্রম আর প্রীতি সাগরজুলিতারা সবাই একটা ছবিতে বিশাল সাফল্য পেয়ে হারিয়ে যান। সেবার সেরা নায়িকার ফিল্মফেয়ার পান সে বছর লক্ষ্মী। মিউজিকেও সেরা হয় “জুলি”। প্রায় সমস্ত টেকনিশান সাউথ ইন্ডিয়ান ….. তামিল এ ছবির …. লক্ষ্মী তামিল ছবি থেকেই এসেছিলেন ….. জুলি ছবিতে লক্ষ্মীর ছোট বোন হয়েছিলেন শ্রীদেবী। প্রাপ্তবয়স্ক (A) ছবি ছিল ‘জুলি’। এই ছবি নিয়ে অমোঘ আকর্ষণ তখন ছাত্রযুব সমাজের…

জুলিবিভাজিকা ও উন্মুক্ত উরুর ঝলক ছিল এ ছবিতে লক্ষী জুলির বড় সম্পদ… নায়কের খোলা বুক … দুজনের লিপলক সিন… বলিউডে তখন প্রেম দৃশ‍্য মানেই গোলাপ-সূর্যমুখীর ঝাড়ের আড়ালে আস্তে আস্তে নায়ক নায়িকার বসে পরা বা চুম্বন মানেই হাওয়ায় দুলতে থাকা দুটি ফুলের ঠোকাঠুকি। সেই হিসাবে সেই যুগের যথেষ্ট বলিষ্ঠ ও সাহসী ছবি ছিল জুলি… সুপার হিট

জুলিলক্ষ্মী তারপর চলে যান তামিল ছবিতে। যদিও তামিল ছবির থেকেই আসেন বলিউডে। ফিরে এসে বলিউডে নামমাত্র ছবি করেন বিগত যৌবনে। হিন্দি মুভি ‘হালচাল’ এ করিনা কপূরের দিদার চরিত্র করেন। কিন্তু ঐ যৌনদেবীকে কি দিদা হিসেবে কেউ মনে রাখে? সেই প্রথম যৌবনের যৌনদেবী জুলিকে মানুষ আজও মনে রেখেছে।

সেই জুলি তখন এখন।জুলি তখন এখন।