জননী’র বড়খোকা, মেজখোকা ও সেজখোকা তিনজনেই এখন চিরতরে মায়ের কাছে ..

Romen Roy Chowdhury

সুপ্রিয়া দেবীও প্রয়াত। জননীর তিন সিরিয়ালের ছেলেও প্রয়াত। জননী তে বড় খোকা হন রমেন রায়চৌধুরী, মেজ পার্থ মুখোপাধ্যায়, সেজ শিলাদিত্য পত্রনবীশ। এঁরা সবাই আজ প্রয়াত। সেজ বৌমা নন্দিনী মালিয়াও প্রয়াত। একে একে দেউটি নিভছে আমাদের ছেলেবেলার টিভির। মঙ্গলবার ভোর পাঁচটায় নিজের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন বিশিষ্ট অভিনেতা রমেন রায়চৌধুরী। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তাঁর এক ছেলে এবং এক মেয়ে রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসারে ভুগছিলেন তিনি। সঙ্গে কিডনির সমস্যাও ছিল। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, কয়েকদিন আগে তাঁকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসার তেমন সাড়া না পাওয়ায়, একটু স্হিতিশীল অবস্হায় ,চিকিৎসকদের পরামর্শে হাসপাতাল থেকে ওনাকে বাড়ি ফিরেয়ে আনা হয়। কিন্তু শারীরিক সমস্যা থেকেই গিয়েছিল। যা তাঁকে খুবই কষ্ট দিচ্ছিল। মঙ্গলবার সেই শারীরিক সমস্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন জনপ্রিয় এই অভিনেতা। বাংলা চলচ্চিত্র জগতে তিনি অসংখ্য স্বনামধন্য পরিচালকের সঙ্গেও কাজ করেছেন। পাশাপাশি ছোট পর্দাতেও চুটিয়ে অভিনয় করেছেন রমেন রায়চৌধুরী। নিয়মিত নাটকেও অভিনয় করতেন তিনি। আরো এক অভিজ্ঞ অভিভাবক অভিনেতা চিরবিদায় নিলেন। আর্টিস্ট ফোরাম সাহায্য করে শিল্পীকে।

সেই ১৯৭৯ থেকে ২০১৯, চল্লিশ বছরের অভিনয় জীবন। জননী সিরিয়ালে সুপ্রিয়া দেবীর বড় ছেলের রোলে খুব নাম করেন। বিষ্ণু পালচৌধুরীর পরিচালনায় জননী প্রথম মেগা সিরিয়াল। সবুজ দ্বীপের রাজা, বৈদুর্য রহস্য, রক্তের স্বাদ, অগ্নি সংকেত, দেবতা, সাথী, ছায়াময়, নির্ভয়া, হার স্টোরি অনেক ছবি অনেক সিরিয়াল অনেক মঞ্চ নাটক যাত্রা করেছেন রমেন রায়চৌধুরী। একটা কলকাতা দূরদর্শনের টেলিফিল্ম মনে পড়ে। উনি আর অনামিকা সাহা স্বামী স্ত্রী হয়েছিলেন। একটা সাদা কুকুরছানা বাড়ি আনা নিয়ে গল্প। ছোটোবেলায় দেখা। কি সুন্দর টেলিছবি। কম বাজেট অথচ কি ভালো গল্প অভিনয়।

প্রণাম।

লেখা – শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়