“দিদা যখন ছিলেন পুজোগুলো অনেক স্পেশাল ছিল”- রিয়া সেন।

দিদা সুচিত্রা সেন , মা মুনমুন সেন , দিদি রাইমা সেন এই পরিচয় হয়তো কারুর থাকলে আর তার পরিচয়ে নতুন করে বলার কিছু থাকে না কিন্তু রিয়া সেন এটাকে পাশে রেখেই তৈরি করেছেন তার ভক্তদের মধ্যে নিজের জায়গা তার অভিনয় দিয়ে !

দিদা সুচিত্রা সেন , মা মুনমুন সেন , দিদি রাইমা সেন এই পরিচয় হয়তো কারুর থাকলে আর তার পরিচয়ে নতুন করে বলার কিছু থাকে না কিন্তু রিয়া সেন এটাকে পাশে রেখেই তৈরি করেছেন তার ভক্তদের মধ্যে নিজের জায়গা তার অভিনয় দিয়ে ! তার কাজ বলিউড থেকে টলিউড সব জায়গায় হয় চর্চার বিষয়। নিজের কেরিয়ারের প্রথম কমার্শিয়াল হিট ছিল ২০০১ এ “স্টাইল” সেখানে ছিলেন শিনার চরিত্রে… ১৫ বছর পর আবার করলেন একটি চরিত্র সেটা ঐ একই নামের আদলে তৈরি হয়তো এটা কাকতালীয় কিন্তু তার অভিনয় কেরিয়ার বেশ চমকপ্রদ, পুজোর আগে “ডার্ক চকলেট”র সাফল্যের পর কেমন আছেন তিনি? ধরা দিলেন আমাদের একান্ত সাক্ষাৎকারে…

“ডার্ক চকলেট” দেখার পর প্রথম ফোনটা কে করেছিলো?

রিয়া- প্রথমে মা, তারপর বাবা, তারপর দিদি।

তোমার করা এই চরিত্রের মধ্যে কোনদিকটা তোমাকে টেনে নিয়ে গিয়েছিল চরিত্রটা করার জন্য?

রিয়া- প্রথমে অবশ্যই পরিচালক কারন তিনি এর আগেও বেশ কিছু বিতর্কিত বিষয় নিয়ে সিনেমা বানিয়েছেন এবং সেগুলোতে খুব সাকসেসফুল , ওনার উপর পুরো ভরসা ছিল আমার! এছাড়া সিনেমার সাবজেক্ট এবং সেটার উপর কিউরিওসিটি আমাকে টেনে নিয়ে যায় চরিত্রটা করার জন্য!

শিনা বোরা হত্যা মামলা আর তোমার সিনেমার শুট মাঝখানের সময়ের ব্যবধান তো খুব কম , চরিত্রটা নিয়ে রিসার্চ করার টাইম পেয়েছিলে?

রিয়া- আমি কোনও রিসার্চই করি নি আর তার উপর বেশি ইনফরমেশনও ছিল না শিনা বোরার, যেখান থেকে আমার চরিত্রটা ইনফ্লুয়েন্সড! আমি শুধু আমার পরিচালকের গাইড লাইন ফলো করে গেছি এবং তারপর সব কিছু সেই মতই হয়ে গেলো।

তোমার কো-স্টারদের রেটিং করো আউট অফ ৫, কে সবথেকে বেশি মস্তিবাজ ছিল সেটে?

রিয়া- সেটে সবার সাথেই খুব মজা করেছি সেরকম ভাবে কিছু বলার নেই তবে মহিমা সবার থেকে উপরে ছিল এই ব্যাপারে! (হাসি)

কি মনে হয় এই চরিত্রটা তোমার টলি-কেরিয়ারে অক্সিজেনের কাজ করলো?

রিয়া- উমমম…. মনে হয় হ্যাঁ কিন্তু এটা আমার ইনটেনশন নয়, আমি প্রত্যেক মুহূর্তে বাঁচতে ভালোবাসি আর এটা একটা ভাল পারফরমেন্স ছাড়া কিছুই না!

তোমার ফ্যানেদের ভীষণ উৎসাহ একটা ব্যাপারে…কবে বিয়ে করছো? যদি এই সময় না করো তো রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসটা কেমন এখন?

রিয়া- আসলে আমি চাই না আমার লাভ লাইফ নিয়ে বা পার্সোনাল লাইফ নিয়ে পাবলিক ডোমেনে কথা বলতে! যদি কোথাও কিছু কেউ শুনেও থাকেন প্লিজ ওটা গুজব হিসেবেই নেবেন কিন্তু!

পুজোর শপিং কেমন চলছে?এবার পুজোতে স্পেশাল কি করছো?

রিয়া- একদম ঠিকঠাক চলছে শপিং, আসলে আমাদের ঘরে মা সবার মানে আমার দিদি,বাবার শপিং করে আর আমরা শুধু নিই (হাসি)! পুজো এলেই আমার একজনের কথা সব সময় মনে পড়ে…আমার দিদা (সুচিত্রা সেন) যখন তিনি ছিলেন আমি তো সবসময় ওনার সাথে থাকতাম এই পুজোর সময়টা, সে আমি যেখানেই থাকি না কেন!

আমাদের পাঠক ও তোমার ফ্যানদের জন্য কি বলবে?

রিয়া- আমার ফ্যানেদের ও সমস্ত পাঠকদের একটাই কথা বলবো সবসময় কাজ করে যাও , সেটার ফল তুমি পাবেই কোনও কিছু বৃথা যায় না!