Home সিনেমা টলিউড এবার গল্পকার অরিন্দম গাঙ্গুলী !
বরেণ্য

লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশন অজয় কর

(জন্ম 27 শে মার্চ 1914 ... মৃত্যু 28 শে জানুয়ারী 1985) বাংলা সিনেমার আলোচনা সবসময় ঘোরাফেরা করে সত্যজিৎ-মৃণাল-ঋত্বিক এই তিন পরিচালকের মধ্যে। সেটা বাঙালীর অবিদ্যা...
ঘটক

‘ওরে হিরোয়িন ছেড়ে অন্য হ, ভালো লাগবে ’ – ঋত্বিক ঘটক

হ্যাঁ , আবার ছবি বানাচ্ছি.. ছবি বানানো ছাড়া আর কী-ই বা করতে পারি আমি !" ভবানীপুরের বাড়িতে বসে ঋত্বিক ঘটক একথাই বলেছিলেন সুচিত্রা সেন-কে...
ধুতী

আজও অমলিন এই খাঁটি বাঙালীয়ানা !

হেমন্ত মুখোপাধ্যায় ও তাঁর পরিবার স্ত্রী বেলা মুখোপাধ্যায় পুত্র জয়ন্ত পুত্রবধূ মৌসুমী চ্যাটার্জ্জী সহ নেমতন্ন খাচ্ছেন ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের মেয়ের বিয়েতে। এরকম বাঙালী বিয়েবাড়ি,বাঙালী খাবারের...

এবার গল্পকার অরিন্দম গাঙ্গুলী !

বিগত তিপান্ন বছর ধরে তাঁর অভিনয় ও সঙ্গীত জীবনে পথ চলা। বয়সের পঞ্চাশের ঘরেই পার করে দিয়েছেন অভিনয় জীবনের পঞ্চাশ বছর… সুবর্ন জয়ন্তী। এবার তিনি আরেকটি নতুন রূপে। ‘অভিনব অরিন্দম’। অরিন্দম গাঙ্গুলী। এই বহুমুখী প্রতিভার শিল্পী তাঁর শৈশব থেকে আমাদের একের পর এক চমক দিয়েছেন। সেই ‘প্রস্তর সাক্ষর’ এ সূয্যিমামাকে প্রণাম জানিয়ে যিনি তাঁর অভিনয় জীবনে প্রথম সাক্ষর রাখেন বাংলা ছবিতে তারপর আইকনিক ‘হংসরাজ’, ‘রামকৃষ্ণ’, ‘বামাক্ষ্যাপা’,’নীল সীমানা’ র আদর্শ হিরো কিংবা ‘ভালোবাসি তাই গাই’ এ গায়ক সঞ্চালক। প্রচুর বাংলা ছবি। অন্যদিকে জোছন দস্তিদারের ‘চার্বাক’ যার আরেক তীর্থক্ষেত্র প্রাণকেন্দ্র। সেখানেও আজ গুরু সে। গায়ক,নায়ক, নাট্যকার, পরিচালক, সঙ্গীত পরিচালক অরিন্দম গাঙ্গুলী। এবার অভিনব রূপে অরিন্দম। গল্পকার অরিন্দম গাঙ্গুলী।

মনে আছে রবি ঠাকুরের ‘সোনার তরী’ র সেই পঙক্তি গুলো ;

“ছোট প্রাণ, ছোট ব্যথা,
ছোট ছোট দুঃখ কথা
নিতান্তই সহজ সরল
সহস্র বিস্মৃতিরাশি প্রত্যহ যেতেছে ভাসি
তারি দুচারিটি অশ্রুজল ।
নাহি বৰ্ণনার ছটা, ঘটনার ঘনঘটা,
নাহি তত্ত্ব নাহি উপদেশ ।
অন্তরে অতৃপ্তি র’বে সাঙ্গ করি’ মনে হবে
শেষ হয়ে হইল না শেষ । “

আদর্শ ছোটো গল্পের সংজ্ঞা। এই নীতিতেই ছোটো গল্পের বইয়ের সংকলন প্রকাশিত হল অরিন্দম গাঙ্গুলীর। জীবনে চলার পথে দেখা নানা গল্প।লেখক গল্পকার রূপে অরিন্দম গাঙ্গুলী। বইটির নাম ‘অভিনব অরিন্দম’। বইটির নিবেদনে পত্রভারতী ও স্টারমার্ক। গত ১৬ জুলাই ২০১৯ সাউথ সিটি স্টারমার্কে হয়ে গেল ‘অভিনব অরিন্দম’ বই প্রকাশ। অরিন্দম গাঙ্গুলী সহ অতিথি ছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, সব্যসাচী চক্রবর্তী,খেয়ালী দস্তিদার ও টলিপাড়ার চেনা মুখরা এবং অরিন্দম খেয়ালী পুত্র আদিত্য, বোন স্বর্ণালী নাগ সহ পরিবারবর্গ। অরিন্দম স্ত্রী খেয়ালী ও ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায়ের উদ্যোগেই এই প্রকাশিত হল , ত্রিদিব বাবু সঞ্চালনাও করলেন দারুন।

প্রসেনজিৎ বললেন ” অরিন্দমের কাছে আমি বুম্বা। আমরা ছোটোবেলার বন্ধু। তাই এই অনুষ্ঠান আমার ঘরের অনুষ্ঠান। আমি তো বইটার গল্প গুলো পড়ে আগে ভাবব কোন গল্পটা নিয়ে ছবি করা যায়।যেহেতু আমার মাথায় সিনেমাই ঘোরে। বই যেভাবে মানুষ পড়া কমিয়ে দিয়েছে সবই মোবাইল নেটের যুগ আজকাল সেখানে একটা বইয়ের পাতা উল্টে দেখা প্রিয়জনের লেখায় খুব বড় ব্যাপার। “এরআগে খেয়ালীর লেখা উপন্যাস প্রকাশিত হয়েছিল। সেইথেকেই অরিন্দমের লেখা প্রকাশের পরিকল্পনা।

অরিন্দম গাঙ্গুলী বললেন ” ছোটোবেলা থেকেই এখনও অবসর সময় মানেই লেখা আমার সঙ্গী। গান,নাটকের পাশাপাশি গল্প কবিতা ছোটো থেকেই লিখি। একবার ছোটবেলায় দুষ্টুমি করায় আমার মা অনুভা গাঙ্গুলী বকেছিলেন, তখন আমার লেখা কবিতা গুলো ছিড়ে ফেলি রাগ করে। কিন্তু লেখা ছাড়তে পারিনি। মা কে আজ আনতে পারিনি এতটা ঘুরে সাউথ সিটিতে আনতে হয় বলে।আমায় যারা ভালোবাসেন এসছেন আমি ধন্য।”

যদিও মা অনুভা দেবীই অরিন্দমের গানের গুরু। মা সবজায়গায় নিয়ে যেতেন ছেলেকে গানের জলসা থেকে ছবির শ্যুটিং। আর অভিনয়ের আরেক গুরু জোছন দস্তিদার। তাই গুরু পূর্ণিমার দিন ও জোছন দস্তিদারের প্রয়ান দিবসকে স্মরণ করে ১৬ জুলাই ‘অভিনব অরিন্দম’ গল্পের বইটি প্রকাশিত হল। এটি প্রথম তাঁর প্রকাশিত লেখার একক বই। তাও আবার জীবন থেকে দেখা নানা গল্পের সংকলন। অনুষ্ঠানের শেষ করলেন সবার অনুরোধে হংসরাজ ‘হংসরাজ’ -এরই গান দিয়ে। ‘হংসরাজের শামু দাদাকে নিয়ে আরতি মুর্খার্জ্জীর সেই বিখ্যাত গান হংস অরিন্দমের নিজের গলায় সাউথ সিটি স্টারমার্কে এক মুঠো গ্রাম বাংলার মেঠো পথের সবুজ হাওয়া এনে দিল।

” ও শামু , শ্যাম রে … ফুল ফোটাতে মধুবনে
একবার ডাক দে রে বসন্ত রে
আমি এসে গেছি রে।। “

স্টারমার্ক ও পত্রভারতী তে পাবেন ‘অভিনব অরিন্দম’ গল্প সংকলনটি।

লেখক শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

এনা

MUST READ

মহালয়ার সেরা পাঁচ ‘ মহিষাসুরমর্দিনী ‘

আকাশবাণী কলকাতার 'মহিষাসুরমর্দিনী 'র পর টেলিভিশনে 'মহিষাসুরমর্দিনী' সবার কাছেই ভালোবাসার। কিন্তু এখন অনেক চ্যানেল হওয়া সত্ত্বেও টিভির মহালয়া দর্শকের বিরক্তি উদ্রেক করে। সেই মেগার...

পুজোর সেরা পুরুষ কে ? এবার পুজোয় অভিনব উৎসব !

পুরুষ। পুরুষ যেন পড়ে পাওয়া চোদ্দ আনা। নারী দিবস নিয়ে হৈচৈ। নারী দিবসের দরকার তো আছেই কিন্তু পুরুষ দিবস কবে কোনদিন আমরা কজন জানি?...

এবার মহালয়াতেই অকাল বোধন !

দেবী দুর্গার ত্রিনয়ন, যার জ্যোতিতে আলোকিত বিশ্ব। সৃষ্ট প্রাণ। আমরা দেবী দুর্গাকে চোখে দেখিনি দেখিনা। কিন্তু দুর্গা মানে এক শক্তি। নারী শক্তি। ধরিত্রীতে সকল...

নটবর ১০০তেও নটআউট !

বাবা সতু রায় ছিলেন নির্বাক যুগের বিখ্যাত অভিনেতা। কিন্তু তাতে ছেলের বিশেষ কিছু সুবিধে হয়নি। তাঁর জন্ম বরিশালে। বাবা পরে চলে আসেন কলকাতায়। শেষে...