এবার চমক দেবেন পরিচালক তথাগত মুখোপাধ্যায়!

লাল রঙের দুনিয়া’ ছবি দিয়ে জার্নিটা শুরু হলেও বাংলা টেলিভিশনে প্রথম বড় ব্রেক ‘বউ কথা কও’র মাধ্যমে। এরপর একেরপর এক বাংলা ধারাবাহিক কিংবা ছবিতে অভিনয় করলেও পরিচালনার একটা সুপ্ত বাসনা বরাবরই থেকে গেছিল তাঁর মধ্যে। ‘শুঁয়োপোকা’ ‘জিওডেসি’ ‘বুনো’র সাফল্যের পর আবার তাই পরিচালনায় নেমে পড়েছেন তথাগত মুখোপাধ্যায়।

চলতি বছরের শুরু থেকে নতুন ছবি ‘ইউনিকর্ন’ এর পরিচালনায় হাত দিয়েছেন তিনি। গ্রিক মাইথোলজিতে স্বাধীনতার প্রতীক ইউনিকর্ন। সেই প্রতীককে ব্যবহার করা হয়েছে ছবির বিষয় হিসাবে।সঙ্গে রয়েছে বাংলার বিখ্যাত নকসিকাঁথা। ‘ইউনিকর্ন’ আর ‘নকসিকাঁথা’। দু’টোর মধ্যে মিল কোথায়? এই দুই বিষয়ই গল্পেমিলে গেছে এক নারীর স্বাধীনতার লড়াইয়ে মাধ্যমে।তৃতীয় বিশ্বের দেশেমহিলারা পুরুষ কর্তৃক পরাধীনতা মেনে নিতে নিতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে।সেই বিশ্বাসের জায়গা থেকেই এক ঘণ্টায় তাঁর নতুন ছবির গল্প বুনেছেনপরিচালক তথাগত মুখোপাধ্যায়।

‘ইউনিকর্নে’র মূল চরিত্র আবর্তিত হয়েছে অপালাকে কেন্দ্র করে।অপালার ভূমিকায় পরিচালকের স্ত্রী অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত মুখোপাধ্যায়। অপালা শহুরে, কর্মরতা, বিবাহিতা মহিলা। জীবন যুদ্ধের নানা চাপে পড়ে যে একসময় চলে যায় পরম্পরাসূত্রে পাওয়া নকসিকাঁথার স্বপ্নের জগতে। কোনটা বাস্তব আর কোনটা স্বপ্ন গুলিয়ে যায় অপালার। ভুলে যায় বর্তমান ঘটনাও।গল্পে অপালা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সাংসারিক বিষয় ভুলে নিজের তৈরি অন্য একটি জগতে চলে যেতে থাকে। সকলে তাকে মনোরোগী ভেবে বসে। অপালার স্বামী জয়ন্তর চরিত্রে রাজ দে। এই ছবিতেমনোরোগ বিশেষজ্ঞের একটি বিশেষ চরিত্রে দেখা যাবে চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তীকে। এক ঘণ্টার ছবি হলেও কোনও ত্রুটি রাখতে নারাজ পরিচালক। তাই প্রতিটি বিষয় খুঁটিয়ে করছেন।গল্পের প্রয়োজনে করতে হয়েছে আন্ডার ওয়াটার স্যুটও। কল্পনার মিশেলে নারী স্বাধীনতার গল্প কতটা জীবন্ত হয়ে ওঠে সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা।