বহুরূপী দেব !!

বাংলার পরিচালকরাও 'কনটেন্ট'এর ওপর নজর দেন, তাহলে আমাদের টলিউড ইন্ডাস্ট্রির ছবিগুলিরও সাফল্য পাওয়া সম্ভব। হালফিলে রাজ, বিরসা, দেব প্রত্যেকেই কনটেন্ট নিয়ে ভাবছেন।

টলিউড বনাম বলিউড চলচ্চিত্রের লড়াইটা চিরকালীনই হয়ে আসছে এক মৃদু-মন্দ ছন্দে, তবে কার কতটা লাভ বা ক্ষতি হল, তা হয়ত এত সহজে বলা সম্ভব নয়। বাংলা চলচ্চিত্রের ইতিহাসের শুরুর দিকে অসাধারণ কিছু বাংলা ছবি মানুষের মনে দাগ কাটতে সক্ষম হলেও, ব্যাবসার দিক থেকে বরাবরই মন্দায় ছিল বাংলা। তার কারণ এটা কখনই ছিলনা যে ছবির কনটেন্টগুলো ভালো না, আসলে সেইসময় প্রতিটা ছবি হলে গিয়ে দেখার মত সামর্থ্য বা ইচ্ছে, কোনোটাই মানুষের তেমন ছিল না। হালফিলে সময় অনেক পাল্টেছে। পাল্টেছে মানুষের পছন্দ-অপছন্দ, স্বাদ বদল ঘটেছে রুচির। পর্যাপ্ত সংখ্যার অভিনেতা-অভিনেত্রী আজ হয়েছে অজস্র আর তেমনভাবেই বেড়েছে পরিচালক ও প্রযোজকদের সংখ্যাও। হলমুখী দর্শকের সংখ্যাও নেহাত কম নয়।

তাহলে এখনও কেন বাংলা ছবিতে লাভের পরিমান শুধুই হাতে গোনা? এই প্রশ্নের উত্তরে টলিউড হার্টথ্রব দেব সরাসরি এক সংবাদ মাধ্যম জানালেন, প্রতিবছরই অসংখ্য বলিউডী ছবি বক্সঅফিসে দারুন সাফল্য পাচ্ছে।টলিউডের তুলনায় বলিউডে ছবি, কাজ, সিনেমা হল অনেকবেশী।

এখন মানুষ অনেকবেশী গ্যাজেট আকর্ষি, তাই সিনেমা হল ছাড়াও ইউটউব’এ ওয়ার্ল্ড সিনেমা দেখে। তাছাড়াও যে কোন ছবিতে একটা ভালো গল্প থাকাও খুব প্রয়োজন, যাতে তার ট্রেলার দেখেই দর্শকেরা গ্রুপবুকিং করে পপকর্ন খেতে খেতে ছবি দেখতে পারেন। জলজ্যান্ত উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতেই পারে বহুল চর্চিত সাউথ ইন্ডিয়ান ছবি “বাহুবলী ২” যা শুধুমাত্র আমাদের পশ্চিমবঙ্গ থেকেই প্রায় কুরি কোটির ব্যবসা করে ফেলেছে, যা সত্যিই অভাবনীয়।

মুম্বাইয়ের পরিচালকেরা ইতিমধ্যেই অগণিত ঐতিহাসিক ঘটনা, এমনকি ভগৎ সিং, গান্ধীজী, নেতাজী’র মত মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়েও কত ভাল ভাল ছবির দৃষ্টান্ত দিয়েছেন। ঠিক এইভাবেই যদি বাংলার পরিচালকরাও ‘কনটেন্ট’এর ওপর নজর দেন, তাহলে আমাদের টলিউড ইন্ডাস্ট্রির ছবিগুলিরও সাফল্য পাওয়া সম্ভব। হালফিলে রাজ, বিরসা, দেব প্রত্যেকেই কনটেন্ট নিয়ে ভাবছেন।

দেব‘এর আপকামিং ছবি ‘চ্যাম্প’ এর টিজার থেকে শুরু করে ট্রেলার ও ভিডিও সং-গুলি দেখে তার অনুগামীরা ইতিমধ্যেই খুব এক্সাইটেড, সূত্রের খবর থেকে আরও জানা গেছে, এর পর আবার দেব আনতে চলেছেন ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে নির্মিত এক ছবি “বিনয়-বাদল-দীনেশ”।

বোঝাই যাচ্ছে টলি-ইন্ডাস্ট্রির সাফল্যের জন্য কিভাবে মরিয়া হয়ে চেষ্টা করে চলেছেন গোটা ইন্ডাস্ট্রির লোক। দেবের এই প্রচেষ্টা কে Gulgal এর তরফ থেকে কুর্নিস জানাই ! বাংলা ছবি আরও সফল্ল্যের দোরগোড়ায় পৌঁছাক ! আশা তো থাকবে অবশ্যই,তবে কতটা সাফল্য আসবে তা সেটাই দেখার।