তুরুপের তাস – শূন্য অঙ্ক !

ডুবন্ত

শাহরুখ খান নব্বই এর দশক থেকে যাঁর রমরমা এখনো৷ এখনো বিজ্ঞাপন জগতে অন্যতম দামী চেহারা। বিশ্বের সেরা ধনী অভিনেতাদের মধ্যে একজন৷ প্রায় দুহাজার কোটি টাকা যাঁর সম্পত্তি, প্রচুর ফ্যান। তাঁর হঠাৎ হলটা কি গত পাঁচ বছর ধরে!

Shah Rukh Khanঅক্ষয়কুমার, আমির খানরা যেখানে বড় বড় ব্লকবাস্টার মুভি দিচ্ছে সেখানে শাহরুখের সিনেমা নেহাতই একশো কোটি ছুয়েছে কোন রকমে। তার অন্যতম কারণ হিসাবে ধরা যায় আমির – অক্ষয়দের মত নিজেকে সেভাবে ভাঙতে পারছেন না কেরিয়ারের শেষে৷ স্বদেশ বা চাক দে ইন্ডিয়ার মত চ্যালেঞ্জিং চরিত্রও নেই।

গত পাঁচ বছরে সিনেমা বার হয়েছে হ্যাপী নিউ ইয়ার। হিট হলেও সমালোচিত। দিলওয়ালে। সেমি হিট। কিন্তু আদৌ ভালো সিনেমা বলে পরিচিতি পাইনি। এরপর ফ্যান, জব হ্যারি মেট সেজালের মত সিনেমা। সেই রোম্যান্টিক চরিত্র সবই প্রায়। কিন্তু কোনটাই সাফল্যের মুখ দেখেনি৷ ভিন্ন চরিত্র হিসাবে ডিয়ার জিন্দেগী আর রইস করেছেন। সেগুলো কিন্তু মোটামুটি হিটই বলা যায়। কিন্তু অন্য সুপারস্টারদের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছেন শাহরুখ খান

Shah Rukh Khanবর্তমান প্রজন্মের যারা শাহরুখের ফ্যান তারা ওই টিভির জন্যই। ডি ডি এল জে, কুছ কুছ হোতা হ্যায়, কাল হো না হো, মোহাব্বতে দেখে তারা বড় হয়েছে। কিন্তু ৫৩ বছর বয়সী শাহরুখকে র‍্যোমান্টিক হিরো হিসাবে দেখতে ইচ্ছুক নয় বর্তমান প্রজন্ম। তা শেষ কয়েকবছরের কেরিয়ারগ্রাফই বলে দেবে। আমির খান জোয়ান বয়সী মেয়ের বাবা হচ্ছেন, অক্ষয়কুমার গ্লামার ফেলে দিয়ে প্যাডম্যান হচ্ছেন সেখানে ৫৩ বছর বয়সী লোক মেয়ের বয়সের নায়িকার সাথে নাচবে এটা দর্শকরা নিতে পারছে না।

সিনেমার বিষয় নির্বাচনও একটা বড় ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্য সুপারস্টারদের সিনেমায় সামাজিক মেসেজ দিচ্ছে। রয়েছে সিনেমার মোরাল সাইডও।  আনন্দ এল রাই গুনী পরিচালক। আগের সিনেমাগুলো ছিল ডাউন টু আর্থ স্টোরি। রাণঝনা, তনু ওয়েডস মনুতে দেখেছিলাম মধ্যবিত্তের গল্প কনটেন্ট নির্ভর। বর্তমানে বলিউডে কন্টেন্ট নির্ভর সিনেমা হচ্ছে বেশি। জিরোর ট্রেলারের শেষদিক যে আভা দেখা গেল তাতে মনে হচ্ছে আবার সেই র‍্যোমান্টিক হিরোর জুতোতেই পা গলিয়েছেন শাহরুখ। বেঁটে হয়েও বড় অভিনেত্রীর সাথে প্রেম বিষয়গুলির মধ্যে ডাউন টু আর্থ ভাবটি উধাও। সুতরাং শাহরুখের ভুবন্ত নৌকা হঠাৎ ভেসে উঠবে কিনা এখনই বলা যাচ্ছে না।

Written By – শোভন নস্কর