কফি উইথ করণ ও তারপর !

কফি উইথ করণ

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে আবার মাঠে এখন হার্দিক পান্ডিয়া। প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত ক্যাচ, প্রতি ম্যাচেই ভালো বল করেছেন, শেষ ম্যাচে ২২ বলে ৪৫ রানের একটা গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলে দলকে জেতালেন৷ শাস্ত্রী বলছেন, জন্মগত প্রতিভা। গাভাসকার মুগ্ধ। ভারতের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার কপিলদেবের সাথে তুলনা হয় তার৷ এহেন হার্দিককে দলে ফিরে পাওয়ার জন্য এতিটাই মরিয়া ছিল যে জেট ল্যাগ না সারিয়েই দলে নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল৷ সামনে বিশ্বকাপে সে গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। অথচ তার ক্রিকেট জীবনটাই শেষ হতে যাচ্ছিল করণের জন্য৷ সাধারণত ফিল্মস্টারদের অনুষ্ঠান ‘কফি উইথ করণ‘ কিন্তু করণ জোহর ডেকে আনলেন এই প্রজন্মের দুই ক্রিকেটারকে হার্দিক ও রাহুল৷ তার নিজের রঙিন জীবন নিয়ে খোলামেলা ছিলেন হার্দিক। যেটা মেনে নিতে পারেনি বহু ভারতীয়ই। ক্রিকেটারদের এখানে ভগবানসুলভ মর্যাদা দেওয়া হয় তা বোধহয় জানতেন না তারা। এখন সবাই আই পি এলের দৌলতে মিলিয়নার হয়ে গেছে কম বয়েসেই৷ যাইহোক, এই পর্যন্ত সবাই জানেন৷ যখন দেশ জুড়ে তুমুল হট্টগোল চলছে এটা নিয়ে তখন করণকে দেখা ইন্সটাগ্রামে পুলে স্নানের ছবি পোস্ট করতে। অনেকে সেটা দেখে নির্দয় বলেছিলেন৷ হার্দিকের কেরিয়ার শেষ করার জন্য অনেকেই ক্ষোভ উগরে দেয় করণ জোহরের উপর৷ এমনকি হটস্টার সেই এপিসোডটি অ্যাপ থেকে সরিয়ে দেয়৷ প্রোডিউসার শো টি বন্ধ করতে উদ্যোগ নেয়৷ করণ কিন্তু এসব গায়ে মাখছেন না৷ নির্লিপ্ত ভঙ্গিতে বলেছিলেন, এমন প্রশ্ন অনেককেই জিজ্ঞেস করেছি৷ তবে হার্দিকের কেরিয়ার সমস্যায় পড়া নিয়ে দুঃখিত ছিলেন করণ৷ তিনি বলেন অনেক রাত তিনি ঘুমাতে পারেননি ঠিক করে। সেই সময় হার্দিক পুরো দুনিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন। ফোনও ধরছিলেন না৷ বোর্ড এখন কড়াকড়ি করছে স্পোর্টস শো এর বাইরে ক্রিকেটারদের না যেতে। এ বিষয়ে আপনাদের মতামত কি?