কেন হলিউড সিনেমার থেকে পিছিয়ে বলিউড ?

ভিএফএক্স

জ বলিউডে ভালো কোন সিনেমা হলেই আমরা হলিউডের সাথে তুলনা করি সে বাহুবলী হোক বা ২.০। সাধারণত ভিএফএক্স নিয়ে আলোচনা হলেও বহুদিক থেকেই বলিউড পিছিয়ে আছে। কারণ গুলো জানা যাক আজ।

১. স্ক্রিন টাইম – আমাদের দেশের বড় বড় স্টাররা যতটা সম্ভব সিনেমার স্ক্রিন টাইম বেশি চায়। কিন্তু হলিউডে টাইমের থেকে চরিত্রে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়। তাই বড় স্টাররাও ছোটখাটো রোল করতেও পিছপা হয়না৷

২. স্ক্রিপ্ট – বলিউডে কোন স্টারকে সামনে রেখে স্ক্রিপ্ট লেখা হয়। কিন্তু হলিউডে স্ক্রিপ্ট লেখার পর স্টারদেরও বার বার অডিশন দিয়ে অভিনেতা নির্বাচন করা হয়। উদাহরণ হিসাবে বলা যায় আয়রনম্যানের জন্য রবার্ট ডাউনি এবং ট্র‍য়ের জন্য ব্রাড পিটকেও বার বার অডিশন দিতে হয়।

৩. স্টারডম -নারীকেন্দ্রিক সিনেমাগুলোয় যেখানে মেয়েরা মূলচরিত্র হয়ে ওঠে সেখানে সেই মেয়েটির বিপরীতে কোন বড় স্টারকে দেখতে পাবেন না। তারা অভিনয়ের জন্য নিজেকে সমর্পণ করেনা।

৪. সিনেমার সময় – হলিউডের সিনেমা যেখানে দেড় দু’ঘন্টায় শেষ হয় সেখানে বলিউডে চরিত্রের প্রেজেন্টেশন বোঝাতে বোঝাতে সিনেমা আড়াই তিন ঘন্টা হয়ে যায়। করণ জোহর বা সঞ্জয় লীলা বনশালীর সিনেমায় এমন অনেক দৃশ্য পাবেন যেখানে অযথা সময় নষ্ট দেখতে পাবেন৷

৫. টাইপকাস্ট – হলিউডে কোন নায়িকাকে দেখবেন ৫০ বছর বয়সেও চরিত্র অনুযায়ী মূলচরিত্রে অভিনয় করতে। কিন্তু বলিউডে ৪০ পার হলে নায়িকাদের প্রায় ছুঁড়ে ফেলা হয়। নব্বইয়ের দশকে দাপুটে নায়িকারা আজ কোথায়? যারা আছেন তারা মায়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন। কিন্তু নায়করা দিব্যি ইন্ড্রাস্ট্রিতে রাজ করে যাচ্ছেন।

৬. অ্যাওয়ার্ড দূর্নীতি– অস্কার পৃথিবীর সেরা সিনেমার অ্যাওয়ার্ড শো। সেখানে অনেক স্বচ্ছতার মধ্যে দিয়ে নির্বাচন করা হয়। যেটা পাওয়া অনেক সম্মানের। কিন্তু বলিউডে আপনি অ্যাওয়ার্ড শোতে অবদান রাখলে কোনো না কোনো ট্রফি পেয়েই যাবেন। দর্শকদের পপুলারিটির দিক নজর দেওয়া হয়। অ্যাওয়ার্ড কেনাও হয়। এটা আমি না কঙ্গনা রানাওয়াত বা আমির খানের মত অভিনেতারা প্রকাশ্যে এ কথা বলেছেন।