দেনা শোধ নয়, জীবন বাঁচালেন বিগ বি !

বিগ বি

সুপারস্টার অনেকেই হয়। কিন্তু কাছের মানুষ হতে পারে কজন। যদিও বিষয়টা কঠিন কিছু নয়, ভালোবাসা, স্নেহ আর অনেকটা দায়িত্ববোধ কাঁধে নিয়ে হাত বাড়িয়ে দেওয়া কেবল, কিন্তু তাও সব সুপারস্টারই মানুষের আপন হতে পারে না! যদিও অমিতাভ বচ্চন কিন্তু আবারো প্রমাণ করে দিলেন, তার খ্যাতি, জশ এই সব কিছুর উপরে তিনি জন সাধারণের মধ্যে থাকা তাদেরই আপন মানুষ।

বিগ বিথাগস্ অফ হিন্দুস্তান দর্শকের পছন্দের না হতেই পারে, কিন্তু বিগ বি দেশের জন্য যা করলেন তা মানুষের মনে তাকে অনেকখানি অমর করে দেবে। চলতি বছরেই মুম্বই তথা মহারাষ্ট্রের তিনশোপঞ্চাশ জন চাষির ব্যাঙ্ক ঋণ শোধ করে ছিলেন তিনি। বছরের শেষে সেই সংখ্যাটাই দাঁড়ালো প্রায় চোদ্দশো তে। টাকার অঙ্কটা ভারতীয় টাকার হিসাবে চল্লিশ মিলিয়ান। উনিশশো পঁচানব্বই থেকে প্রায় তিরিশ লাখ চাষির দেনার দায়ে মৃত্যু দেখেছে যে দেশ, সেখানে এই অঙ্কটা নেহাত কম নয়! চাষিরা সকলেই বিগ বি-র জন্মস্থান উত্তর প্রদেশের। সকলের সঙ্গে দেখা করা সম্ভব নয় তাই ছাব্বিশে নভেম্বর সত্তর জন চাষির সঙ্গে নিজে দেখা করে তাদের হাতে ব্যাঙ্কের দলিল তুলে দেবেন বলেও জানান অমিতাভ

 অমিতাভ বচ্চনদেশের বড় বড় সমাজসেবক বা পলিটিক্যাল লিডাররা যা করতে অক্ষম তাই করে দেখালেন বিগ বি। এ তো কেবল ঋণ শোধ করা নয়, অনেক চাষির জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার মতো। অনেক পরিবারের হাসি, শান্তি ফিরিয়ে দেওয়ার আর এক নাম। আর তাই নিজেই ট্যুইট করে জানালেন দেশের জন্য, মানুষের জন্য সামান্য কিছু করতে পেরে নিজেকে অনেকটা ভারমুক্ত মনে হচ্ছে তার। নিন্দুকেরা এটাকে কর্পোরেট শ্যোসাল রেসপনসিবিলিটি দেখিয়ে নিজস্ব ইমেজ সাদা করার ফাঁদ বলতেই পারেন, কিন্তু তাও এমন করে সাধারণ মানুষের জন্য আর কজন সুপারস্টারই বা ভাবেন আজকাল! অমিতাভ যে কেবল একজন বিশিষ্ট অভিনেতাই নন, ভারতবর্ষের একজন সচেতন নাগরিক-ও, তা আবারো প্রমাণ করে দিলেন।