ক্রিকেটের ২২ গজকে পরিচালক মিলিয়ে দিয়েছেন জীবনের ২২গজে

গজ

ক্রিকেটকে ধর্ম বলে মানা হয় যে দেশে, সেখানে তার চলচ্চিত্রায়ণ হবে না, এমনটা আবার হয় নাকি? ভারতবর্ষে ক্রিকেট নির্ভর চলচ্চিত্রের গাঙে তাই নতুন জোয়ার নিয়ে হাজির এম.এস প্রোডাকশনস ৭৪ এর “টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস“। বাংলায় বললে যার আভিধানিক অর্থ হয়ে দাঁড়াবে বাইশ গজ। ‘ইকবাল’, ‘লগন’, ‘কাই-পো-চে’ এর মত উৎকৃষ্ট মানের চলচ্চিত্রের সাক্ষী থাকা আপামর ভারতীয় সিনেমাপ্রেমী হয়ত আবার পেতে চলেছে ওরকম-ই একটি মনে রাখার মতো কাজ। সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবির ২ মিনিট ৩৭ সেকেন্ড-এর ট্রেলার অন্তত সেই আশাই দেখাচ্ছে। ছবির নাম ভূমিকায় রয়েছেন “ইস প্যায়ার কো ম্যায় ক্যায়া নাম দুঁ” খ্যাত বরুণ সোবতি। ক্রীড়া নির্ভর ফিল্মে অভিনয়ের পূর্ব অভিজ্ঞতা রয়েছে অবশ্য এই অভিনেতার। ২০১৭-তে মুক্তি পাওয়া ‘তু হ্যায় মেরা সানডে’ সিনেমায় ফুটবল পায়ে দেখা গিয়েছিল বরুণকে। এছাড়াও এই সিনেমার অন্য নামচরিত্রে রয়েছে অমর্ত্য রায়। ২০১৮-তে মুক্তি পেতে চলা বাংলা ছবি ‘উড়নচন্ডী’র হাত ধরে যিনি ফিল্মি দুনিয়ায় পা রেখেছেন। এছাড়া রয়েছেন রাজেশ শর্মা, বর্তমানে বলি-টলি উভয় জগতেই পার্শ্বচরিত্রে অন্যতম আলোচিত নাম যিনি। ‘এম.এস.ধোনী দ্য আনটোল্ড স্টোরি’তেও তাকে মহেন্দ্র সিংহ ধোনির ছোটবেলার কোচের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল। রিয়েল লাইফে অমর্ত্য রায়ের চৈতি ঘোষাল “টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস” এর রিল লাইফে দিদির ভূমিকায় অভিনয় করছেন। এরা ছাড়াও রজিত কাপুর, গীতিকা তেয়াগী রয়েছে অন্যান্য চরিত্রে। মিতালী ঘোষাল পরিচালিত এই সিনেমায় বরুণ সোবতি একজন স্পোর্টস এজেন্টের ভূমিকায় রয়েছে।  বরুণ সোবতি টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডসচরিত্রটির জীবনের সফলতার পথে হঠাৎ বাধা হয়ে দাঁড়াবে কিছু ঘটনা, যা শূন্যে এনে ফেলবে চরিত্রটিকে। সিনেমার প্রথম অংশে সাংবাদিক ও স্পোর্টস এজেন্সি নামক দুটি আন্তঃসম্পর্কিত বিষয়ের দ্বন্দ্ব চিত্রিত হতে চলেছে। দ্বিতীয় অংশটি অবশ্য অমর্ত্য রায়ের অনূর্ধ্ব উনিশ ক্রিকেটার চরিত্রর হাত ধরে জীবনে বাইশ গজে উত্থানের গল্প বলেই মনে হচ্ছে। আপাতভাবে দেখলে, নির্মাতারা ক্রিকেট মাঠের বাইশ গজকে জীবনের বাইশ গজের সাথে সমান্তরাল করে উপস্থাপন করতে চেয়েছেন। শহর কলকাতা যে এই সিনেমার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ, তা ট্রেলার দেখেই বোঝা যাচ্ছে। আলোকোদ্ভাসিত ইডেন গার্ডেনস, অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিক্টোরিয়া, স্মৃতিমেদুর হাওড়া ব্রিজ, বিদ্যাসাগর সেতুর প্রাণোচ্ছল চিত্রায়ণ তারই বর্ণনা করেছে ছবির ট্রেলারটিতে। ছবির সংলাপগুলি এককথায় রোমহর্ষক হতে চলেছে, ট্রেলারটি অন্তত সেই কথাই বলে। ট্রেলারটির শেষের দিকে বরুণ সোবাতির কণ্ঠে শোনা যাচ্ছে – ” লুক অ্যাট দ্য গ্যালারি শো। হাজারো লোগ দেখনে কে লিয়ে আতে হ্যায়। অউর ইয়াহা, যাহাঁ হম খাড়ে হ্যায়, দ্য টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস, অনলি টু ব্যাটসমেন ক্যান ব্যাট অ্যাট এ টাইম।” দৃশ্যটি ক্রিকেট প্রেমী তথা সিনেপ্রেমীদের হলমুখী করতে বাধ্য। এ ছবির সংলাপ, কাহিনী ও চিত্রনাট্যে রয়েছেন সম্রাট। সময়োপযোগী ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোরও বেশ লক্ষ্যনীয়। স্পোর্টস এজেন্টের জীবন নিয়ে তৈরি করা অন্যতম জনপ্রিয় সিনেমা টম ক্রজের ‘জেরি ম্যাগুয়ার’। বরুণ সোবতির লুকস্, ও “টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস” এর ট্রেলার একঝলকে যেন সেই সিনেমার কথাই মনে করায়। প্রত্যাশার পারদ চড়িয়ে দেওয়া এই সিনেমা মুক্তি পেতে চলেছে আগামী ২২-শে ফেব্রুয়ারী।