শেষ সিনটা না দেখলে মিস করে যাবেন ‘দেশী র‍্যাম্বো’কে !

২০১২ সালে পরিচালক সাজিদ নাডিয়াডওলা সঙ্গে নিয়েছিলেন একজন নবাগত’কে, নাম টাইগার শ্রফ। অল্প বয়সী এই নায়কের ঝুলিতে অভিজ্ঞতার কমতি ছিলো ঠিকই, তবে ডান্সিং আর মার্শাল আর্টে তাঁর নিপুনতা সেই অভাব টিকিয়ে রাখে নি। তা সত্ত্বেও সমালোচক গোষ্ঠীর আঙুলের সামনে তাকে আসতেই হয়েছিলো। ইস্যু ছিলো অভিনয়। অনেকে আবার প্রশ্ন তুলেছিলো লুক নিয়েও। সেইসময় হাতের কাছে উত্তর না থাকায় অপেক্ষার পথই বেছে নিতে হয়েছিলো টাইগারকে।

উত্তর মিলেছিলো ২০১৬ সালে। সাব্বির খান পরিচালিত ‘বাঘী’ (রেবেল) জবাব ছিলো তাঁর অভিনয় নিয়ে প্রশ্ন তোলা মানুষদের জন্য। এবার আর সমালোচনার জন্য ইস্যু করা গেলো না লুক’কেও। কমার্শিয়াল নায়ককে যেমনটা হওয়া উচিত ঠিক তেমন ভাবেই পাওয়া গেলো জ্যাকি পুত্র’কে। এরপর ‘ফ্লাইং জাট’ এবং ‘মুন্না মাইকেল’ তাকে আরও সাহস যুগিয়েছিলো। হয়তো এই সাহস না জোগালে ‘বাঘী ২’র জন্য আরও অনেকটা স্ট্রাগল প্রয়োজন হতো। স্ট্রাগল যে লাগে নি তেমনটাও না। তাঁর পরবর্তী ছবি ‘বাঘী ২’র ট্রেলারের প্রতিটি অংশে সেই স্ট্রাগলের ছাপ ধরতে পারা গেছে। ধরতে পারা গেছে আরও চ্যালেঞ্জিং একজন অভিনেতা’কেও। এবং এই দ্বিতীয় পর্বের ‘বাঘী’কে তৈরি করতে অনেকটাই ঝুকি নিয়েছেন পরিচালক আহমেদ খান। এমনটা হয়তো আহমেদ খান বা টাইগার শ্রফ কারোর জীবনেই আগে ঘটেনি। বোঝা যাচ্ছে, বলিউডি নামজাদাদের মাঝে আরও বড়ো ব্রেক নেওয়ার লক্ষ্য ফিক্স করে ফেলেছেন টাইগার। তাই কোনো ঝুঁকিতেই ভয় না পেয়ে তিনি আপন করে নিচ্ছেন নিত্যনতুন চ্যালেঞ্জকে।

সাব্বির খানের বদলে যেমন পরিচালক আহমেদ খান থাকছেন এই ছবিতে তেমনই রদবদল হয়েছে ফিমেল ক্যারেক্টারেও। শ্রদ্ধা কাপুরের বদলে দিশা পাটানী স্ক্রিন শেয়ার করবেন টাইগার শ্রফ’র সাথে। তবে সব ছাড়িয়ে যদি ‘বাঘী ২’র ট্রেলার নিয়ে কিছু মন্তব্য করতে হয় তাহলে বলা যায় শেষ সিনেই বাজি মেরে দিয়েছেন টাইগার। এরকম অপ্রত্যাশিত একটি স্টাইলে ভিলেনদের পা ভেঙে ফেলার কেরামতি হয়তো সাউথের ফিল্মেও দেখা যায়নি। এবং এই সিনটা না দেখলে আপনি সত্যিই মিস করবেন একজন দেশী র‍্যাম্বো’কে।

দেখুন ছবির ট্রেলার ঃ