“রাজনীতির চাপান-উতোর তো থাকবেই না, উল্টে সাপোর্ট থাকবে” – অরিন্দম শীল!

ধনঞ্জয়ের চরিত্রে আমরা পেতে চলেছি অনির্বাণ ভট্টাচার্যকে যদিও পর্দায় নাম থাকবে মৃত্যুঞ্জয়, আর উকিলের ভূমিকায় মিমি।

কিছুদিন ধরেই গোয়েন্দা সিনেমা বানানোর সাথে সাথেই নিজেই হয়ে গেছিলেন একজন দুঁদে গোয়েন্দা। হেতাল পারেখ মার্ডার কেস ও ধনঞ্জয়ের ফাঁসি’র স্মৃতি এখনো দগদগে বাঙালীর মনে, পক্ষে-বিপক্ষে চা’র কাপের আড্ডায় ঝড় তুলেছিলো তৎকালীন সময়ে কিন্তু আসল সত্যিটা কি কেউ পারবে না এখনো বুক ঠুকে বলতে তাই পরিচালক অরিন্দম শীল নিজেই নেমেছেন আসল সত্যি সবার সামনে নিয়ে আসতে, রিসার্চে রাখেন নি কোন খামতি,হাইকোর্টের দস্তাবেজ থেকে বাঁকুড়ায় ধনঞ্জয়ের ভাই বিকাশের বাড়ি সবজায়গায় পড়েছে তাঁর চোখ!

ধনঞ্জয়ের চরিত্রে আমরা পেতে চলেছি অনির্বাণ ভট্টাচার্যকে যদিও পর্দায় নাম থাকবে মৃত্যুঞ্জয়, আর উকিলের ভূমিকায় মিমি।

এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে থাকবেন সুদীপ্তা চক্রবর্তী, হর্ষ ছায়া, অনুষা বিশ্বনাথন সহ অনেকে। অরিন্দম শীলের এই নতুন চ্যালঞ্জের প্রসঙ্গে কথা বললেন আমাদের সাথে…

ধনঞ্জয় কেসে সেইসময় তোলপাড় হয়েছিলো রাজ্য-রাজনীতি! এই সিনেমা রিলিজের পর সেই পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা কতখানি?

“একদমই না! এটা নিয়ে অনেকদিন ধরে চলেছে, সবাই জানে, রাজনীতির চাপান-উতোর তো থাকবেই না,উল্টে সাপোর্ট থাকবে”

মিমির স্বভাবসিদ্ধ প্রতিবাদীসত্ত্বা এই সিনেমায় কতটা সাহায্য করবে?

“শুধু মিমি কেন আমি এই পর্যন্ত যাদেরকে ব্যবহার করেছি তারা অনেকেই অন্য কাজ অন্যরকমভাবে করে এসেছে তারপর আমার সিনেমায় একদম অন্য কাজ করেছে, কে কিভাবে কাজ করছে বড় কথা নয়, চরিত্রের জন্য যেটা দরকার পড়ে আমার অভিনেতারা সবসময় সেটা দিয়ে থাকে আর মিমি নিজে খুব ভালো অভিনেত্রী তাই মিমিও সেটা দেবে আমার বিশ্বাস।”

কার চোখ দিয়ে আমরা সত্যিটা দেখতে চলেছি পরিচালক না ধনঞ্জয়?

“ধনঞ্জয়ের স্ত্রী ও তাঁকে যে হেল্প করেছেন মিঃ সিনহা এই দুজন অবশ্যই বিশেষ ভুমিকা পালন করবেন, আর হয়তো এই দুজনের চোখ দিয়েই আমরা সত্যিটা দেখতে পাবো!”