‘শো মাস্ট গো অন’ অনিন্দ্যর জীবনের মূল মন্ত্র এখন এটাই!

‘গ্ল্যমার ওয়ার্ল্ড’ জগৎটা বাইরে থেকে দেখতে যতটা গ্ল্যমারাস লাগে আদতে ঠিক ততটা হয়তো নয়। গাড়ি থেকে নামলে অজস্র মানুষের ভিড়, ক্যমেরার ঝলকানি, সেলিব্রিটির তকমা সবটা সরিয়ে রাখলে, দিনের শেষে আপনার সিলভার স্ক্রিনের সেই পছন্দের তারকাও কিন্তু মানুষ, আমার আপনার মতোই রক্তে-মাংসে গড়া মানুষ। তাদের জীবনটা আপাত দৃষ্টিতে অনেক বেশি স্বচ্ছল মনে হলেও, সেই জীবনেও থাকে মন খারাপ। তাই মানুষ সাধারণ হোক কি সেলিব্রিটি, মানুষ মাত্রই ‘পারফেক্ট লাইফ’ বলে কিছু হয় না। সম্প্রতি এই লাইনটাই নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন অভিনেতা অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন : কার প্রেমে ‘ফিদা’ হলেন যশ?

বিগত বেশ কিছুদিন ধরে অনিন্দ্য কে দেখা যায়নি সোশ্যাল মিডিয়ায়, পোস্ট করেন নি কোনও ছবিও। গতকাল তিনি তার ঘরের একটি ছবি পোস্ট করে লেখেন, এখানেই আজকাল সব থেকে বেশি সময় কাটাচ্ছেন তিনি। পরিস্থিতি হয়তো মানুষকে এভাবেই বদলে দেয়, সেখানে সাধারণ বা অভিনেতার কোনও পার্থক্য থাকে না। বিগতে এক মাসে অনিন্দ্যর জীবনে ঘটে বেশ কিছু ঘটনা, যা হয়তো অনেকটা বেশি শক্ত করেছে তাকে।

Was mostly away from social media for a month,however I decided to post a picture of my room. Where I’ve have been spending a lot of time lately. Now the question is why? Well,Landed in kolkata exactly a month back single,ended a 8 year old relationship,all I needed some time to adjust. And as luck would have it. My baba fell sick in delhi,I had to rush back. A series of sleepless nights while my dad was fighting for his life on the ventilation. He came back home after surviving 11 days In the ICU and got diagnosed with lung cancer just two days back. Another battle starts knowing its not going to be nice in the end,still carrying some hope in my pockets. Why am i writing so much ? I could have easily posted a picture of myself smiling for the likes and shares. But at times we actors,artists also go through some serious life struggles that is beyond our social media presence. Its just a reminder that nobody has a “perfect life”. No amount of money, success or material possessions makes a person whole. We are all struggling. I’m not alone. I hope everyone can have close friends,who love them enough who will understand what they need to get off their chest. Keep them close.

A post shared by Anindya Chatterjee (@achatterjee4) on

লন্ডনে তার পরবর্তী ছবি ‘ফিদা’ এর শ্যুটিং শেষ করে ফিরেছেন এক মাস আগেই। তার পর পরই ভেঙে যায় তার গত আট বছরের সম্পর্ক। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে একটা আট বছরের সম্পর্কের মূল্যটা হিসাব করাটা বেশ কঠিন। জীবনটাকে আবার নতুন করে গুছিয়ে নেওয়ার চেষ্টা শুরু করতেই জীবন তাকে দাঁড় করালো আরেক কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখে। শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে হসপিটালে ভর্তি হন অনিন্দ্যর বাবা। বেশ কিছুদিন ছিলেন ভেন্টিলেশনে, বাদ পরেনি আই.সি.ইউ। সমস্ত যুদ্ধের শেষে গত দুদিন আগে ডাক্তার জানান যে তিনি ফুসফুস ক্যন্সারে আক্রান্ত। অতএব যুদ্ধ শেষ নয়, বরং সবে শুরু, যার পরিণাম যে খুব মধুর হবে না সে কথা নিজেও জানেন অনিন্দ্য। অনিন্দ্য তার জীবনের এই গত এক মাসের ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন শুধু এই বার্তার জন্যই যে একজন অভিনেতার আভ্যন্তরীণ জীবনেও থাকে অনেকটা স্ট্রাগ্যল, যা ধরা পরেনা সোশ্যাল মিডিয়ায়। দুঃখ-কষ্ট, যন্ত্রণা এই সব কিছুই তাদের জীবনের একটা পার্ট। কিন্তু দিনের শেষে একটা কথার তাৎপর্জ সকলের ক্ষেত্রেই সমান প্রযোজ্য, সে সাধারণ মানুষ হোক কি অভিনেতা ‘শো মাস্ট গো অন’।