রঞ্জনের সাহসী রেসিপি!

‘হৃদমাঝারে’ ছবি দিয়ে মাথা উচুঁ করে উঠে এসেছিলেন একজন নবাগত পরিচালক রঞ্জন ঘোষ। তাঁর অভিজ্ঞতা আরও পোক্ত করেছিলো দ্বিতীয় ছবি ‘রংবেরঙের কড়ি’। অভিজ্ঞতার সাথে পোক্ত হয়েছে নতুন কিছু করার সাহস’ও। আর এইজন্যই হ্যাটট্রিকের বেলাতে মাঠে নামছেন সাহসী গল্প হাতেই। রঞ্জন বাবুর প্রথম ছবি ‘হৃদমাঝারে’ বেশ প্রশংসিত হয়েছিলো দর্শক মহলে। তবে কেবল একটা বা দুটো ছবি দিয়ে টলিপাড়ার প্রভাবশালীদের সাথে পাল্লা দেওয়া যায়না। কিন্তু তৃতীয় ছবির বেলা আশার আলো অনেকটাই উজ্জ্বল হয়েছে।

এবার নাকি ফুডফিল্মের ওপর কাজ করবেন রঞ্জন বাবু। ছবির নাম “আহা রে”। ছবিটির প্রোমো অন্তত তাই বলছে। এবং সেখানে যে স্টার কাস্ট দেখা গেলো সেটিও অবাক করার মতো। ছবিটির প্রধান চরিত্রে একপাশে যেমন ঋতুপর্ণা রয়েছেন তেমনই অন্যপাশে তাঁর স্ক্রিনের মুখ্য ভাগিদার আরেফিন শুভ।

দুজনের মধ্যেই যুগের ফারাক অনেকখানি। এক্ষেত্রে ঋতুপর্ণা’র পাশে আমরা তাঁর সমকালীন কোনো অভিনেতাকেই আশা করি। যদিও সেটা না করে একটি সাহসী জুটি তৈরি করে ফেললেন রঞ্জন। অন্ততপক্ষে এটা বোঝা গেলো যে, ফুডফিল্মের মধ্য দিয়ে দর্শকদের গতানুগতিক চাহিদার স্বাদও পাল্টাতে চান তিনি। সহজ করে বললে, দর্শকদের মুখে নতুন স্বাদ জোগানোই রঞ্জন বাবুর উদ্দ্যেশ্য, মোটিভ দুটোই।

এছাড়াও প্রোমো দেখে ছবিটির গল্প সম্পর্কে একটি স্বাভাবিক ধারণা তৈরি করা যায়। বোঝা যাচ্ছে, আরেফিন শুভ’কে দেখা যাবে একজন প্রোফেসনাল কুকের চরিত্রে। তাঁর বিপরীতে যিনি আছেন তিনিও একজন কুক তবে প্রোফেসনাল নন। আর সাধারণ মধ্যবিত্ত বাড়ির বাঙালি মহিলার মতোই ঋতুপর্ণা’র চরিত্রটি একজন হোম কুকের।

টলিপাড়াতে এর আগেও ফুডফিল্ম তৈরি হয়েছে। সাম্প্রতিক উদাহারন হিসেবে বলা যায় “মাছের ঝোল”। কিন্তু ফুডফিল্মের সঙ্গে রোমান্টিকতার মিক্সোলজি ঘটিয়ে এরকম আনকমন জুটি নিয়ে কাজ করার সাহস হয়তো খুব কম পরিচালকেরই আছে।