যে যতই তর্ক সাজাক, ভূতেদের সাথে আপনি আরও বন্ধুত্ব বাড়ান বিরসাবাবু!

ক্যামেরা থেকে লাইটিং, বিজিএম থেকে কস্টিউম, স্ক্রিন প্লে থেকে পরিচালনা সবেতেই একটা ভালো সিনেমাপ্রেমী ভূত ভর করেছিল টিম সব ভূতুড়ের উপর।

বাংলা সিনেমাতে ভূতের গল্প! ব্যাপারটা হাস্যকর হবে না তো? এই প্রশ্নটা ওঠা এই সময়ে দাঁড়িয়ে  ভীষণ স্বাভাবিক এবং প্রাসঙ্গিক..কারণ বিগত কয়েক বছরের ট্র্যাক রেকর্ডে বাংলা সিনেমাতে ভূত নিয়ে সিরিয়াস সিনেমা নেই তাই হিট না ফ্লপ সে বিষয় তো অনেক দূরের কথা, তবে এবার বাংলা সিনেমাতে ভূতকেও এভাবে সিরিয়াসলি প্রোজেক্ট করা যায় দেখিয়ে দিল বিরসা দাসগুপ্তরা! অবশ্য পরিচালক ২০১৪তে এইরকম একটা ভৌতিক চমক দিয়েছিলেন ‘গল্প হলেও সত্যি’তে কিন্তু সেই সময় অনেক সমালোচকরা ব্যাপারটা ‘রিমেক’ তকমা দিয়ে হলের মধ্যে পাওয়া ভয়টাকে কাটিয়ে দিয়েছিলেন কিন্তু মনে হয় না ‘সব ভূতুড়ে’ দেখার পর কোণ দোহাই দিয়ে ভয়টা কাটাতে পারবেন!

এই সিনেমাটা দেখতে দেখতে ভয়ে সিটে সেঁধিয়ে যাওয়ার পাশে একটা ব্যাপার বেশ ভালো লাগছিল, সেটা হল ‘টিমওয়ার্ক’। ক্যামেরা থেকে লাইটিং, বিজিএম থেকে কস্টিউম, স্ক্রিন প্লে থেকে পরিচালনা সবেতেই একটা ভালো সিনেমাপ্রেমী ভূত ভর করেছিল টিম সব ভূতুড়ের উপর। এই টিমের অন্যতম তিন নাম গৈরিক সরকার (সিনেমাটোগ্রাফার), কল্লোল লাহিড়ী (স্ক্রিন-প্লে), শুভ প্রামানিক (মিউজিক)। ভূতের সিনেমাতে ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর একটা বড় ভূমিকা নেয় সেখানে এই সিনেমা একদম ফুল মার্কস পাবে।

আবির-সোহিনী জুটি ইতিমধ্যেই বাংলার পরিচালকদের কাছে একটা লোভনীয় জুটি আর সেই সুযোগটা বেশ ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছেন পরিচালক। সোহিনী অবশ্য একটা মার্ক সেট করলো, এরপর কোন বাঙালী পরিচালক ভূতের সিনেমা বানালে তাঁর নায়িকাকে সোহিনীর রেফারেন্স দিয়ে বলতেই পারেন, “আমার ঠিক ঐরকম অভিনয়টাই চাই!” হ্যাঁ এতে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না কারণ এতোটাই নিখুঁত সোহিনী।

পরিচালক কন্যা ইদা’র এই ডেবিউ মনে রাখবে বাঙালীরা, এইরকম ভয়ঙ্কর, সুন্দর লুক দেওয়া এতো কম বয়সে জানান দিচ্ছে আগামীদিনে আরও এক প্রতিভা অনেক কিছু দেবে বাংলা সিনেমাকে। এই সিনেমা দেখে একটা জিনিস পরিষ্কার হল আর যাই হোক ভূতের সিরিয়াস গল্প বলাতে পরিচালক বিরসা দাসগুপ্তের জুড়ি মেলা ভার তাই যে যতই তর্ক সাজাক, ভূতেদের সাথে আপনি আরও বন্ধুত্ব বাড়ান বিরসাবাবু! পুজোর আগে সত্যি একটা গা ছমছমে সিনেমা আপনাদের জন্য নিয়ে এলেন পরিচালক, অবশ্যই দেখা উচিৎ এবং ঐ বাংলা সিনেমাতে ভূত মানেই যে হাস্যকর হবে সেই ধারণাতে এবার পেরেক পুঁতে দেওয়া উচিৎ! আজকে রিলিজ করছে ‘সব ভূতুড়ে’, আপনার কাছের সিনেমা হলে গিয়ে দেখুন এবং সেলিব্রেট করুন এই নতুন ধারার বাংলা সিনেমার উত্থানকে..আর হ্যাঁ একটা কথা, একটু সচেতনভাবে দেখবেন কারণ পাশের সিটে বসা কারুর খোঁচা লাগলে চিৎকার করে নিজে ভয় পাবেন না বা বাকিদের ভয় পাইয়ে দেবেন না!