পুজোর এই গান না শুনলে মিস করে যাবেন অনেক কিছু!

পুজোর গান। বাঙালির কাছে একসময় এই শব্দবন্ধটা ছিল অতি চেনা এবং অতি প্রিয়। পুজো এলেই প্রিয় শিল্পীদের নতুন রেকর্ড বা ক্যাসেটের জন্য মুখিয়ে থাকতেন তাঁরা। শিল্পীরাও পুজোর জন্যই হয়তো বাড়তি তাগিদ নিয়ে, বাড়তি উৎসাহ নিয়ে পরিবেশন করতেন নিজেদের। যুগ বদলেছে। পুজো নিয়ে মাতামাতি একই রকম থাকলেও, ভাটা পড়েছে পুজোর গানের বাজারে। ‘পুজোর গান’ বলে আলাদা কিছু আর নেই বললেই চলে। যা-ও বা অ্যালবাম বেরোয়, তারও ব্যবসা মন্দা-ই চলে পাইরেসির দাপটে আর প্রচারের অভাবে। অবস্থা এমনই দাঁড়িয়েছে যে, ফিল্মের গানের বাইরে ব্যক্তিগত অ্যালবাম রিলিজ এখন হাতেগোনা কয়েকটি।

তা সত্ত্বেও সাহসটা দেখিয়েই ফেললেন নচিকেতা! জনপ্রিয় এই শিল্পীর নতুন কাজ – ‘মা তুমি শক্তি’, যা কিনা একটি নন-ফিল্ম মিউজিক ভিডিও – রিলিজ করল পুজোর আগে আগেই! সরাসরি ইউটিউবের মাধ্যমেই দর্শক-শ্রোতাদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে কঙ্কনিকা চক্রবর্তী’র প্রযোজনায় কুইনটেলস প্রোডাকশনের ব্যানারে সৌম্যজিৎ আদক পরিচালিত এই গান। বাংলার শ্রোতাদের মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সংখ্যা যে ক্রমশঃ বাড়ছে, এ-কথা মাথায় রেখেই যে এই প্রয়াস, তাতে সন্দেহ নেই।

কিন্তু নিছক পুজোর সময় বেরোচ্ছে বলেই কি পুজোর গান? না, বরং নচিকেতার ‘মা তুমি শক্তি’ কথায়-দৃশ্যায়নে তুলে ধরেছে পুজোর মূল আদর্শকেই। ‘যে নারী, সেই দুর্গা’ – এ ভাবনার ছড়াছড়ি গানের পরতে পরতে। নারীর স্বাবলম্বন, অন্যায়ের বিরুদ্ধে তার প্রতিবাদ, সমাজের সমস্ত প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করে তার এগিয়ে যাওয়া – এসবই ফুটে উঠেছে যথাযথ ভাষায় ও সুরে। সঙ্গে উপরি পাওনা দর্শকদের খুব চেনা তারকাদের উপস্থিতি, যাঁদের মধ্যে আছেন প্রিয়ঙ্কা, রুদ্রনীল, দর্শনা, নিকিতা, অভিজিৎ’রা। নচিকেতার গায়কীও তার নিজের গুণেই টেনে রাখে শ্রোতাদের। সব মিলিয়ে বলতেই হয়, অনেকদিন পর একটা ‘পুজোর গান’ পেল বাঙালি, সত্যি করেই।