পুজোর আগে বোধন ‘বোধিচিত্ত’র!

রিলিজ করল ‘বোধিচিত্ত’ এর ফার্স্ট অফিসিয়াল মিউজিক ভিডিও ‘মুখোশ’। ‘মুখোশ’ – শুনতে ছোট্ট একটা শব্দ, কিন্তু তার পেছনে লুকিয়ে থাকে অনেক অর্থ, অনেক দিক। আর সেই সমস্ত দিকগুলিকেই দেখতে পাবেন এই মিউজিক ভিডিওতে। শমীক রায় চৌধুরীকে সাধুবাদ এইরুপ দৃশ্যায়নের জন্য, ভিডিওর কনসেপ্টের জন্যও বটে। আমাদের সমাজে আর কিছু থাকুক বা নাই থাকুক একটা জিনিস খুবই স্পষ্ট, তা হল ভেদাভেদ, সমাজের নীচু তলার সাথে উপরতলার ভেদাভেদ। এরকমই এক তথাকথিত সফিসটিকেটেড মহিলা অনুভব করেন যে তিনি আসলে তো বন্দী, যশ অর্থ কোনও কিছুই তার শান্তির কারণ হতে পারেনা। তাই তিনি বেরিয়ে পড়েন এক সমাজের উদ্দেশ্যে যেখানে মানুষ মুখোশ পড়েনা। কিন্তু সত্যি কি সমাজে এমন কোনো মানুষ আছে যে মুখোশ পরে না? আসলে কিন্তু এই সমাজে প্রত্যেকটি মানুষ মুখোশ পরিহিত, কেউ স্বেচ্ছায় কেউ বা অনিচ্ছায়। তাই প্রশ্ন এটা নয় যে কেউ মুখোশ পরেছে কেন, বরং প্রশ্ন এটা যে তারা কি কারনে মুখোশ পড়েছে। কেউ কেউ রাজনৈতিক ভাবে অন্ধ সেজে মুখ ঢেকেছে মুখোশে, কারুর বা বিল্পবী মন্তব্যকে ঢেকে দেওয়া হয়েছে মুখোশে।

তাই ভিডিওতে দেখাও যায়, যে সেই সমস্ত মুখ বেঁধে দেওয়া মানুষগুলো অ্যসিড বাল্ব ছুঁড়ছে রাজনৈতিক দেওয়াল পত্রিকায়। আর মহিলাকে এই সমস্ত দিকগুলো দেখাচ্ছেন তথাকথিত নীচু সমাজের একটা ছোট্ট মানুষ, যে হয়ে উঠছে কিনা আল্টিমেটলে ফিলোসফার, দ্য লাইফ গাইড, যার বক্তব্য আপাত দৃষ্টিতে নিজেকে স্বাধীন মনে হলেও, আপনি আসলে বন্দী। এই ভাবনাই ফুটে উঠেছে পুরো মিউজিক ভিডিও জুড়ে, যার লিড রোলে দেখা গেল রোশনি ভট্টাচার্য অর্থাৎ বোধিচিত্ত এর ভোকালিস্টকে। এই প্রসঙ্গে এই মিউজিক ভিডিওর পরিচালক শমীক রায় চৌধুরী জানান যে, তিনি থ্যঙ্কফুল ফসিলসের চন্দ্রদা এবং বোধিচিত্ত’র রোশনি ভট্টাচার্য’র কাছে, তাকে এইরকম এক্সপেরিমেন্টাল ভিডিও বানানোর সুযোগ করে দেওয়ার জন্য। এই ভিডিও’র লঞ্চে উপস্থিত ছিলেম রূপম ইসলাম সহ আরও অনেকে রইল তারই কিছু ঝলক এবং সঙ্গে অবশ্যই এই অসাধারণ গানটি…

This slideshow requires JavaScript.