কোন বাচ্চার ভবিষ্যৎ নিয়ন্ত্রনের রিমোট কি সমাজের হাতে? প্রশ্ন তুললেন রানি মুখার্জি!

‌মানুষ এই পৃথিবীতে জীবশ্রেষ্ট। তবে আমাদের ইচ্ছাশক্তির ক্ষমতা ঠিক কতটা তা স্বাভাবিক অবস্থায় আন্দাজ করা না গেলেও, বিপদের সম্মুখে  তা সহজবোধ্য। সেক্ষেত্রে মানুষের জীবনের কোন প্রতিবন্ধকতাই তার লক্ষ্যের পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না।কিন্তু সমাজ,সে তো চলে তারই নিয়মে।

‌ঠিক যেমন কোন বাচ্চার জন্ম তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকে না, তবে তাদের ভবিষ্যৎ কি হতে পারে তার নিয়ন্ত্রণ অবশ্যই সমাজের হাতে! সমাজে এমন কিছু নিয়ম কেন তৈরি হবে যে শুধুমাত্র সে জন্মেছে একটা ধনী পরিবারে বা সে জন্মেছে একটা মধ্যবৃত্ত পরিবারে বা সে জন্মেছে একটা গরীব পরিবারে, তার ওপর নির্ভর করে তাদের পড়াশুনা শেখা এবং প্রতিষ্ঠা হওয়াটা নির্ভর করবে! সমাজের অভিজ্ঞ-জ্ঞানীজনদের থেকেই তো বাচ্চারা তাদের আগামীকে জানবে, চিনবে। তারাই যদি ছোট ছোট বাচ্ছাদের মধ্যে ধনী-দরিদ্রের ফারাক তৈরি করে থাকেন, তাহলে ? এরকমই কিছু কঠিন সত্য ও সামাজিক প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন কিছু বাচ্ছাদের জীবনে এগিয়ে যাওয়ার যে লড়াই তারই এক দৃষ্টান্ত নিয়ে আসতে চলেছে সিদ্ধার্থ পি মলহোত্রা পরিচালিত এবং মনীশ শর্মা প্রযোজিত আপকামিং হিন্দি ছবি ‘হিচকি’।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ইয়াস রাজ ফিল্মসের ব্যানারে সম্প্রতি প্রকাশ্যে এল ‘হিচকি’ ছবির ট্রেলার। যেখানে রানি মুখার্জীকে দেখা যাচ্ছে এক শিক্ষিকার ভূমিকায়। কিন্তু সাধারণ মানুষের স্বাভাবিকত্তের মধ্যেও কিছু মানুষের কিছু সমস্যা রয়েই যায়, সেইরকমই এক সমস্যাকে  চ্যালেঞ্জ জানিয়ে নিজের আত্মবিশ্বাস ও ইচ্ছে শক্তির জোরে একজন শিক্ষিকা তার অবহেলিত  শিক্ষার্থীদের যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন তাদের সেই অধিকারের লড়াইতে, যা হয়তো আবারও  সমাজের এক নতুন রূপ দেখাতে চলেছে। তাই আর দেরি না করে আপনিও দেখেনিন ‘হিচকি’ ছবির সেই ট্রেলার।