দেবের সিনেমা এবার বেরোবে ইংরেজিতে!

‘রংবাজ’, ‘খোকাবাবু’ বক্স অফিস মাতালেও বাংলা ছবি তাকিয়ে ছিলো অন্য একটা পরিবর্তনের দিকে। কমার্শিয়াল ছবির টানটান অবস্থা কারোরই অজানা ছিলো না। তবে দেব’র হাত ধরেই এই খরার সময়েও রিস্ক নিয়েই ফেলেছিলেন পরিচালক কমলেশ্বর মূখার্জী। আন্তর্জাতিক পুরস্কারের খ্যাতিতে এমনিতেই তাঁর বেশ নামডাক। সংশয় যে একদমই ছিলো না তা বলাও ভুল। সবদিক তোয়াক্কা না করেই বিভূতিভূষণের রচনা নিয়ে কাটাছেঁড়া শুরু করলেন কমলেশ্বর। সময়টা ২০১৩ সাল। অবশেষে পথ প্রশস্ত করে মুক্তি পেলো ‘চাঁদের পাহাড়’। এর পরের কথা গুলো না বললেও চলে। কারণ প্রথম কোনো বাংলা ছবি বুক ফুলিয়ে টক্কর দিয়েছিলো বলিউডের সাথে।

প্রায় ৩ টে বছর কেটে যাওয়ার পর আবারও টলিউডে রব উঠলো ‘চাঁদের পাহাড় ২’ নিয়ে। কথাটা অবশ্য ভুল ছিলো না। এবার হয়তো বুনিপের খোঁজখবর মিললো না তবে পিরানা আর এনাকোন্ডা’দের নিয়ে এক অনবদ্য শঙ্কর পরিচয় দিলেন দেব। বিভূতিভূষণ’ও হয়তো রচনা কালে এসব সত্যি হওয়ার কথা ভেবে দেখেননি। এবারের শঙ্কর আরও পরিনত। ব্রাজিলের রিও নিগ্রো, রিও সলিময়েস নদীতে আন্ডার ওয়াটার শুটিং’ও সেরে ফেলেছেন এবারের শঙ্কর তথা দেব। ওদিকে প্রযোজক দেব’র দ্বিতীয় ছবির কাজ এই মুহুর্তে শেষ। ব্যস্ততার পালা চুকিয়ে আজ প্রেক্ষাগৃহে পা রেখেছে ‘ককপিট’।

২০১৬ তে মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও গ্রাফিক্স ঘটিত কয়েকটি কাজ বাকি থাকায় সেবছর নিরাশ হতে হয়েছিলো সিনেমা প্রেমীদের। তবে এইবছর আর ঘুরে ফিরে একই গল্পের পক্ষপাতি নন দেব। বরং আগে ভাগেই ‘এসভিএফ এন্টারটেইনমেন্ট’র হাত ধরে দর্শকদের উদ্দেশ্যে তুলে দিলেন ‘আমাজন অভিযান’র টিজার। এই ছবিকে বাংলার সর্বেসর্বা তকমা দেওয়া যে ভুল হয়নি তা টিজার দেখলেই নিশ্চিন্তে বিশ্বাস করা যায়। চলতি বছর বড়োদিনের মরসুমেই তাদের একশো তম উপস্থাপনা অর্থাৎ ‘আমাজন অভিযান’র মুক্তির দিন ধার্য্য করে ফেলেছে ‘এসভিএফ এন্টারটেইনমেন্ট’।

এছাড়াও ‘এসভিএফ এন্টারটেইনমেন্ট’ ‘আমাজন অভিযান’কে ঢাল করেই বাংলা ছবিকে তুলে ধরতে চান বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দরবারে। এজন্য অবশ্য বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য ভাষা সহ ইংরেজিতেও ছবিটি মুক্ত করার লক্ষ্য মাত্রা ঠিক করে ফেলেছে তারা। ইংরেজি ভাষায় ছবিটি আত্মপ্রকাশ করবে ‘আমাজন অ্যাডভেঞ্চার’ নামে।