দুই মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে ভূতুড়ে গল্প শোনাবেন বিরসা!

আরোও একবার ভৌতিক গল্পকে নিয়েই তৈরি হতে চলেছে তাঁর আগামী ছবি। ছবিটির নাম "সব ভূতুড়ে"।

ভৌতিক ব্যাপার-স্যাপার যে এই পরিচালককে বেজায় আকৃষ্ট করে তার প্রমাণ মিলেছিলো ২০১৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত “গল্প হলেও সত্যি” ছবির মধ্যেই। সিনেমার পর্দায় বিদেশি ভূতের বাহুল্য থাকলেও বিরসা দাশগুপ্তের পছন্দের তালিকায় নেমে আসে বাঙালি ভূতের অদ্ভুদ সব কাহিনী। ২০১৪ সালের পর আরও একটি গা ছমছমে বিষয় নিয়ে ফিরেছেন বিরসা দাশগুপ্ত। যদিও বিগত কিছু দিনে “গ্যাংস্টার” এবং “ওয়ান” এর মতো ছবির মধ্যেই আটকে ছিলেন বিরসা। অবশ্যই সময়ের অবর্তমানে স্বাদ পাল্টাচ্ছেন তিনিও। আরোও একবার ভৌতিক গল্পকে নিয়েই তৈরি হতে চলেছে তাঁর আগামী ছবি। ছবিটির নাম “সব ভূতুড়ে”।

ছবিটির প্রধান চরিত্রে থাকছেন আবীর চ্যাটার্জী। গল্পের মূল বিষয়টি এগিয়েছে তাকে নিয়েই। ছবিতে আবীরের চরিত্রের নাম অনিকেত। অনিকেত প্রায় নাস্তিক প্রকৃতির মানুষ। অর্থাৎ ভূত বিষয়ক তত্ত্ব তাঁর কাছে নিছকই মিথ্যে। তবে অনিকেতের বাবা একেবারেই উল্টো যৌক্তিকতায় বিশ্বাসী। ভূতের খবর শুনে দৌড়ে যান তিনি। দূর-দূরান্ত থেকে নিয়ে আসেন ভৌতিক খবরের বিবিধ। তারপর সেই গল্প নামিয়ে ফেলেন নিজের ম্যাগাজিনের পাতায়। এইভাবেই কেটে যায় দিন হটাৎ একদিন ঘটে যাওয়া একটি ভৌতিক ব্যাপার অনুসন্ধানী করে তোলে অনিকেত’কে। ঘটনাচক্রে অনিকেত সাক্ষী হয় নন্দিনী নামের এক চরিত্রের। নন্দিনী একেবারেই উস্কোখুস্কো চরিত্র। বাস্তবে তাঁর মন নেই বললেই চলে। তবে নন্দিনী নাকি ভূত দেখতে পায়। চরিত্রের সমাগমে আরও একটি লাইন জুড়ে এক ছয় বছরের মেয়ের চরিত্রও থাকবে ছবিটিতে। এই চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে বিরসা এবং বিদীপ্তা‘র ছোট মেয়ে ইদা দাশগুপ্ত‘কে। থাকবেন বিরসা দাশগুপ্তের বড়ো মেয়ে মেঘলা দাশগুপ্ত‘ও। না! কোনো রকম চরিত্রে নয়, বড়ো মেয়ে মেঘলা কাজ করবেন ছবিটির সহযোগী পরিচালক হিসেবে। কল্লোল লাহিড়ী‘র হাতে গড়া গল্পটিতে বাঙালিয়ানার কমতি নেই। তথাপি বাংলার মানুষ যে পেট পুরেই এই গল্পের স্বাদ নেবে তার অনিশ্চয়তা থাকে না।